Gopinath Jew in Mitra family- Konnagar

Mitra family of Konnagar and the famous temple of Lord Gopinath Jew founded by them :

Mitra family had previously been settled at Barisha in Behala in 1050 B.S. Late Ramdas Mitra was a reputed person in Mitra family. His life was dedicated to the service of God. Ramdas had an oracle from his adorable Lord Krishna, "Put my idol at Teorapara, Konnagar." Followed by this oracle, he purchased nine bighas of land at Teropara near Grand Trunk Road (recently known as Dakshinpara) by the main road which went by the river Ganges. From the soil of that land he got required bricks to build a temple and a two storied building. He dug two tanks, too. He went to Vrindaban in search of the idol he saw in his dream, found it at last and brought it to Konnagar. The only transport then were bullock-cart or carriage, no railways were founded then. It was a surprise how he managed to carry an idol of black stone weighing 25 kgs from Vrindaban to Konnagar. He ordered an idol of Sri Radha, the aesthetic power of Lord Krishna, made of the alloy of eight metals and then placed these two idols in his temple in 1055 B.S. The temple consisted of a central room with the idols and two rooms on both sides. One of them was bed room for the deity and the other was a store room for offerings and articles for worship. There was a veranda eight feet in breadth in front of three rooms. Food to be dedicated to God was being prepared there. It was heard from the seniors there that the temple was dedicated to a Brahmin so that all the devotees could take the "Prasad" without hesitation. The temple was wide open to all and he made a trustee for regular worship and smooth control of everything.
We find a reference of Konnagar in the book "Manasamangal" by Bipradas Pippalai written in 1414 A.D. Konnagar became very popular in the last decade of seventeenth century as a proper place for the culture of Sanskrit Language through pundit Ananda Chandra Bhattacharya Sarbabhouma. Shiv Chandra Dev founded the English School first in 1855 there. A shipyard dock was founded there during the first half of nineteenth century. It became a municipal town in 1944 popular among the persons lived there in nineteenth century were Raja Digambar Mitra (1818-79) and Dinabandhu Nyayaratna (1819-95). The ideology of Ramakrishna Paramhansadeva followed konnagar during 4th decade of twentieth century.
Nabachaitanya Mitra, the fourth generation of Mitra family was a permanent Govt, employee and recided in Kolkata. He had a pleasant voice in "Kirtana" . He loved music from his childhood. His Kirtana had enchanted hundreds of devotees with a divine pleasure and moreover it attracted the attention of Remkrishnadeva too. Paramhansadeva was a priest of the temple of Bhabatarini in Dakshineswar then and was becoming very popular with the devotees there. Nabachaitanya had the pleasure of meeting Ramkrishnadeva first time in the end of the year 1878 or just after that when he was still in the service. Thakur once joined the great festival of Panihati (" Dandotsaba") and returned to ferry ghat with full swing of devotional kirtana. But when was still in the ferryghat, Nabachaitanya was mad to get the news . He came and threw himself in His feet and aloud "Master , have mercy on me, please." Ramkrishnadeva had touched him and that gave him a spiritual realization. He kept on dancing with great pleasure . Thakur calmed him down some how. Thakur was so pleased with the devotion and sincerity of Nabachaitanya that He visited his house and the temple of Lord Gopinath Jeu several times , the first one being on December 3, 1882 (eighteen Agrahayana, 1289 B.S.)
The blessed book of "Nabachaitanya" and "Prabuddha Bharat " by respected swami Prabhanandaji Maharj would give evidence of the fact . Blessed Nabachaitanya then began to reside by the river Ganges in a thatched hut and devoted full time in submitting to the almighty. He had his friends in Dakshineswar. They too used to come over to him and went to pay occational visit to Lord Gopinath Jew. Swami Vivekananda too came to that thatched house in Konnagar by the river Ganges. Tulsi Maharaj came to inform Swamiji that his brother had come to see him in Barahanagar Math. Nabachaitanya breadth his last in 1904. This disciple of Ramkrishnadeva became immortal in the history of Konnagar.
Sailendra Krishna Mitra , the seventh generation of Mitra family was born on March 04,1905 in Konnagar. The day was auspicious "Shiva Chaturdashi" .
His mother came of the famous Ghosh family of Jhamapookar Lane, great attorney family of Calcutta . She educated herself upto class VIII . Sailendra Krishna started his education in Konnagar but then he had to go to Peshwar, Lahore and Lucknow with his father. He got famous Actor Pahari Sanyal as class made in Lucknow.
Sailendra Krishna lost his father at the age of 13. The responsibility of a big family consisting of widow mother, and widow aunt and three unmarried sisters burdened in his shoulders . He had to hard cash except his home and the adjacent land . He knew that his father had money kept for safety to some his friends, but when Sailendra Krishna was deeply in need of it he went to them, they flatly denied it. Akshay Kumar Ghosh, his maternal uncle, helped him learned typing in Bowbazar. He raised his speed to 55 in six months and thus got a service in Daw-Sen and Co. by the help of his uncle. The salary was meager but he knew his duties well and so became a responsible employee of the concern in no time. He have been married to Ashalata of Basu Family of Baidyabati at the age of 21 only .
The idea of starting a business with Mango Chatney and pickle came in his mind at the age of 23 in 1928. He began to take preparations. His wife was the only helping hand. He procured some mangoes and gave training to his wife how to make the slices and preserved it adequately. He went on buying required utensils to manufacture Mango Chatney and pickle, chemicals for the proper preservation, bottles and other requisite for packing. There was no source of extra earning, capital was only Rs. 30/- per month , only thing he had was some experience and immense strength of mind. With those real capital he took the risk of starting a new business . He know how to produce Mango Chatney and pickle from his company. After duty hours he worked whole night to cook Mango Chatney and pickle, sealed the bottles in the morning, put the levels on it. When he went to the station to join his duty, he went with a bag full of such bottles. He contacted a porter named Laloo to carry it to the shops of Chowringhee and New market. He supplied bottles there and when to his office in time.
He had to resign his employment after 3 years because it was impossible to go on with this routine and moreover the demand for his Mango Chatney and pickle was increasing. It turned to be a full time job. Some friends previously invested money in his business but two of them withdrew after 3 years because labour was very hard and the profit was small. Sailendra Krishna had to go to Sahibpara frequently for the interest of his business . He caught the attraction of Sir Tallek Mackoy with his sincerity , regularity and honesty. Sir Tallek Mackoy was the nephew of Sir Inchkep , a very influential man in the Europian society of Calcutta then. It was on his recommendation that Sailendra Krishna bagged the order to supply Mango Chatney and pickle regularly to Garden Reach Workshop and the River Steam Navigation Co. in Kidderpore . But he faced a hard obstacle after three years. Two friends who were nothing but his partners , claimed to be the owner of the company . A big godown in the mean time had been rented in 150, Manicktala Main Road where work was going on with full swing. The godown and the company had to stop production due to the disturbances, a case had been lodged in High Court . It took three years to settle the disputes. The decision of High Court went in favour of Sailendra Krishna. He was declared the owner of the company.
It was not an easy task to start the company afresh. But Sailendra Krishna was not a man to give in. In 1943-44 , his wife Ashalata insisted on selling her jewellery to get money. But the money was spent to clean the godown and make necessary arrangements. He confessed his present status to Jiban Krishna Dey, the owner of the house and godown and begged his help . Mr. Dey was pleased with Sailendra for his tenacity and perseverance, offered to help him with some conditions. Sailendra Krishna started his production again and began to supply Mango Chatney and pickle to his old customers. Previously mangoes had been procured from Jessore and Khulna but the supply stopped after partition. He gave continuous training to proper slicing of mangoes in Malda for 10 years and made an arrangement so that Malda could supply mangoes to him permanently.
Marketing at Sahibpara was at a low ebb after independence . So Sailendra made correspondence outside India to export his products in Foreign Countries. He had first success in 1949. Inspired by this, he soon made a campaign in foreign countries with his Mango Chatney and Mango pickle in 1955. He visited the whole continent, London, America and Canada and secured order from every where. He took next year Bankok, Malayasia, Singapore, Hong Kong, Japan, Australia and Newziland and returned with sufficient orders for his Mango Chatney and Mango pickles. Sailendra Krishna had been elected President Eastern Zone by All India Food Preservers Association.
Sailendra Krishna could not stand strain of the hard labour all through his life. Once while he was discussing some points in the Association, he failed chest pain and heart disease had been detected. After proper treatment in Calcutta for two months, he took rest for another in his home. Then he started to renovate the temple of Lord Gopinath Jew. The temple was then 300 years old and needed reconstruction. This renovated temple has been inaugurated by respected Swami Abjajanandaji Maharaj and litterateur Tara Shankar Bandyopadhyay
Sailendra purchased 8 bighas of land in Konnagar to make a large size workshop for the production of Mango Chatney, Mango Pickles and jelly. It started in 1959 and the work was finished in 1962. He started to export his product to foreign countries right from the beginning. He stopped his workshop in Manicktala and brought all his machinery to Konnagar. The total No. of workers then was sixty. The name of the product was at first Mida & Co. and now it was named Mida & Co. (P) Ltd. In 1969 he founded a new workshop at Ghushury (Howrah) in the name of Ajanta Fine foods Co. and began to export his Mango Chatney to foreign countries. Next he started exporting his products in the name of Sexona Condiments.
In 1972 he caught Diabetes. He suffer severe neurotic pain from 1973 to 1974. Though he toured Europe, London, America and Canada as scheduled, when he returned in No. 1981 , he was seriously ill. It was evident that he could not bear such responsibility any longer. But he ignored it and went out for another long tour Bangkok, Singapore, Newzeland and Australia only three months later. His disease became critical in Melbourne, Australia. He was under the treatment of a reputed physician there, but in vain. He breathed his last in a hotel in Adelaid. Thus ended the life of a great enthusiastic and energetic man. Our business product Mida & Co. (P) Ltd. had a wide market in foreign countries then . The production and export had been increased day by day over a 100 persons employed there. The temple of Lord Gopinath Jew has also increased its grandeur with marble setting in the floor and walls. Regular worships and devotional festivals are performed every year and 100 or more devotees visit this temple during festival.
I went one day to respected President Maharaj SriMath Swami Vireswaranandaji to inform him that I wanted to celebrate the centenary of Thakurs visit to the temple of Lord Gopinath Jew. Vireswaranandaji told me, "Amarendranath, since you are .the present descendant of Mitra family you have the responsibility to maintain the tradition of your family and dignity of your heritage temple. Consult respected Bharat Maharaj and he will arrange everything so that the celebration is flow less ." I reported it to respected Bharat Maharaj and he by turn informed respected Swami Gahananandaji Maharaj and respected swami Prabhanandaji Maharaj of the proposed centenary celebration of Thakurs visit to the temple Lord Gopinath Jew and to make it a success. I was of the opinion that the celebration would be for just one day but Maharajji told me that according to "Kathamrita" Thakur had visited the temple in December 3, and that was a Sunday, so the festival should go on three days. The programme should like this : Inauguration on Friday, special offerings and gathering of saints in the evening on Saturday and "Sadhu bhandara" and offering to Gods through fire on Sunday morning. The responsibility of the whole programme would rest on respected Swami Nirliptanandaji Maharaj .
The celebration was held accordingly. As settled previously , in the morning of December 2 an open car traveled the city with the photographs of Shree Thakur, Sree Maa and Swami Vivekananda . They had been garlanded by respected Swami Smaranandaji Maharaj and respected Swami Nirliptanandaji Maharaj. A movie had been shown at afternoon on Swamiji and there was a kirtan recital by reputed singer Kanailal Bandyopadhyay. In the morning of December 3, offerings were made to Lord Gopinath Jew, Shree Thakur, Sree Maa and Swamiji with "Homa, special homage and rice. Fifteen saints from Belur and other maths have their lunch "Prasad". Other devotees too had Prasada. Theosophical lectures were arrange in the evening and respected Swami Niramayanandaji Maharaj, Swami Sarbatmanandaji took part in it . In the morning of December 4 special homage , "Home", Rice , Pilau , various curries , chatney , sweetened rice and sweets were offered to Lord Gopith Jew,
Sree Thakur, Sree Maa and Swamaji. "Sadhu Bhandara" was held at noon where seventy seven Maharaj as from Belur and other places had their meals with "Prasada". Every Maharaja was offered adequate "Pranami" and a wrapper . 400 devotees got their Prasada. The mission of Sree Thakur, Sree Maa and Swami Vivekananda had been discussed in the afternoon by respected Swami Vandanandaji Maharaj, Swami Gahanandaji and Swami Prabhanandaji. Respected Swami Prabhanandaji Maharaj explained with details of Nabachaitanya , how thakur influenced him and why thakur used to come to this temple to meet him . The sacred visit of Ramkrishnadeva here is celebrated till now in the first Sunday of December . Respected Maharajji from Belur and other maths still come here and join the theosophical discussion every year to deliver their preacher.
I have long acquaintance with respected Darshanadaji Maharaj. I had the habit to render my pranam to every body before I enter the room of Maharaj. I went to Kantai Math of Ramakrishna Math with him . After a few years he told me privately, "I have a rare thing in my custody and that is the assess of the sacred bone of Thakur's body. I shall give you a small portion of it in a jar. Place it in your temple, worship it and meditate in front of it but this must be a secret." Previously rain water became stagnant in Yogodwan in Kankurgachi. Once rain water enter in the room of Thakur and remained there for a few days. As a result of it the assess became socked with water with the container. It had been rescued some how and had been kept in a higher place. The residue was kept in another bottle. Maharaj was a bosom friend of respected Darshanandaji Maharaj. So he gave secretly the bottle to respected Darshanandaji when he went to Yogodwan. No one knew of this. He had been transferred to Aryago Bhavan for his illness after six years. The news became open that this Maharaj had with him the assess of sacred bone of thakur. Respeted Swami Atmasthaanandaji collected the bottle from him. Respected Darshanandaji Maharaj has told me that. I put the assess in a silver casket and placed it in a throne in 2nd floor of my worship room. Ramkrishnadeva took rest twice in that room. I spent two and a half hours of my mornings and evenings during past 30 years.
The practice was interrupted in December , 2010 . Following my illness, my daughter brought me to her home in Uttarpara. I informed the whole thing to the authorities of Belurmath . They advised me not to keep such sacred thing with me and suggested that it should be thrown in the river Ganges. I felt sad and informed everything to the Mother i.e. the General Secretary of Sarada Math Prabrajika. Amal Prana Mataji had a talk with President Mataji and she came to the temple of Lord Gopinath Jew on the auspicious day of the birth day of Latoo Maharaj and took with her the silver casket of sacred assess of Thakur to Sarada Math. We had all along been a joint family living in this old house. My arrangement was at a room on the 2nd floor when I was just 15 or 16. It was divine place where Ramkrishnadeva took rest when he came here. There was a photograph of Nabachaitanya when he was a saint. There were vacant land all along the house. The nights were quiet. Moonlit nights cast a divine atmosphere. Jingling anklets broke my sleep many a times. I felt as if Sree Radhika was playing with Krishanji. I told my mother of that feeling and my mother too confessed of hearing such jingling .
A museum is going to start at Belur. Respected Swami Prabhanandaji Maharaj is in search of the utensils and other things in the houses of Thakur lived once to keep them in the museum. The articles used by the disciples of Thakur are also placed in the museum. Revered Maharajji came to this house and collected from this room in the 2nd floor once inhabited by Nabachaitanya some utensils used by Ramkrishnadeva. They also took utensils made of bell-metal and brass used by Nabachaitanya himself and two pairs of tambourine which he used during kirtana. They collected an old table lamp made of copper . The chimney too was original. It had been cleaned, a cork was made and kept in the house of Cosssipore of Thakur (which is a museum now). Many saints used to come to the temple of Lord Gopinath Jew. The flow is not over till to day. Their feeling proves that the idol is something more than a black stone . This temple as well as the place is pilgrimage. Ramkrishnadeva had repeated visits here. This made the pilgrimage a divine place. The temple is still there with full glory, regular worship, offerings and distribution of Prasada go on and will continue to go on forever.

কোন্নগরের মিত্র পরিবার ও তাঁদের প্রতিষ্ঠিত বিগ্রহ শ্রী শ্রী গোপীনাথ জিউ


১০৫০ বঙ্গাব্দের মিত্রদের পরিবার বরিষা-বেহালায় স্বচ্ছলভাবে বাস করতেন। এই বংশের স্বনামধন্য পুরুষ রাঁমদাস মিত্র একদিন স্বপ্নাদেশ পেলেন, দেখলেন তাঁরাই আরাধ্য কৃষ্ণমূর্তি তাঁকে বলছেন, ‘আমাকে কোন্নগরের তেওরপাড়ায় প্রতিষ্ঠিত কর।’ ওই স্বপ্নাদেশ পেয়ে তিনি কোন্নগরে এলেন এবং তেওরপাড়ায় রাস্তার ওপর (অধুনা দক্ষিণপাড়া নামে পরিচিত) ন’বিঘা জমি ক্রয় করেন। স্থানটি গ্র্যান্ড ট্রাস্ক রোডের কাছে এবং গঙ্গানদীর সন্নিকট বলে তাঁর পছন্দ হয়। ওই জমির মাটি কেটে তা থেকে ইট পুড়িয়ে একটি দ্বিতল বাড়ি এবং মন্দির তৈরি করলেন। কাছে দুটি পুষ্করিণীও হল। স্বপ্নে দেখা মূর্তির সন্ধানে তিনি বৃন্দাবনে গেলেন, অনেক অন্বেষণের পর স্বপ্নদৃষ্ট মূর্তির সন্ধান পেয়ে তা কোন্নগরে আনলেন। তখনকার দিনে গোরুর গাড়ি বা ঘোড়ার গাড়ি ছাড়া অন্য কোনো যানবাহন ছিল না। রেলপথ স্থাপিত হয়নি। ভগবৎ উদ্দীপনায় কী করে পঁচিশ কেজি ওজনের কষ্টিপাথরের মূর্তি তিনি সুদূর বৃন্দাবন থেকে কোন্নগরে এনেছিলেন, ভাবতেই আশ্চর্য লাগে। অষ্টধাতুতে নির্মিত কৃষ্ণের হ্লাদিনী শক্তি শ্রীরাধিকার মূর্তি তৈরি করে রামদাস মিত্র ১০৫৫ বঙ্গাব্দে এই মন্দিরে কৃষ্ণ-রাধিকার মূর্তি প্রতিষ্ঠিত করলেন। মন্দিরের মধ্যবর্তী স্থানে হল গর্ভমন্দির, আর দু’পাশে দুটি ঘর-একটি শয়নঘর, অন্যটিতে নৈবেদ্য করা, ভোগের জিনিসপত্র রাখা হয়। তিনটি ঘরের সামনে আটফুট চওড়া বারান্দা। তারই পর্ব-দক্ষিণ কোণে বারান্দার লাগোয়া একটি রান্নাঘর, তাতে নিত্য অন্নভোগ রান্না হত। পরিবারের প্রবীণ সদস্যদের কাছ থেকে শোনা জায়, এই মন্দির প্রতিষ্ঠাকালে তা ব্রাহ্মণের নামে উৎসর্গ করা হয়েছিল, কারণ তখনকার দিনে অনেক ব্রাহ্মণের মধ্যে এই গোঁড়ামি ছিল যে তাঁরা কায়স্তদের হাতে খাবেন না। অব্রাহ্মনের ছোঁয়া যাতে না লাগে সেইজন্যই এই ব্যবস্থা করা হয় যাতে এই বিগ্রহের প্রসাদ খেতে কারো কোনো আসুবিধা না হয়। সকলের জন্য অবারিত দ্বার করবার মানসে সমস্ত জমি, বাড়ি তিনি দেবত্র সম্পত্তি করে দিলেন যাতে সেবা-পূজার কোনো আসুবিধা না হয়।
১৪৯৪ খ্রিস্টাব্দে রচিত বিপ্রদাস পিপলাইয়ের ‘মনসামঙ্গলে’ কোন্নগরের উল্লেখ পাওয়া যায়। সপ্তদশ শতকের শেষভাগে আনন্দ চন্দ্র ভট্টাচার্য সার্বভৌমের বিদ্যাবত্তায় সংস্কৃতচর্চার পীঠস্থানরূপে কোন্নগর খ্যাতির উচ্চচুড়ায় উঠেছিল। শিবচন্দ্র দেব কোন্নগর উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ১৮৫৫ খ্রিস্টাব্দে। উনিশ শতকের প্রথমভাগে এখানে জাহাজ নির্মাণের ডক তৈরি হয়েছিল। এখানে গড়ে উঠেছিল সুতা, পাট ইত্যাদির বৃহৎ শিল্পের কারখানা। ১৯৪৪ সালে কোন্নগর একটি পৃথক পৌর শহরের মর্যাদা লাভ করে। কোন্নগরে উনিশ শতকের বাসিন্দাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রাজা দিগম্বর মিত্র (১৮১৮-৭৯) ও দীনবন্ধু ন্যায়রত্ন (১৮১৯-৯৫)। বিশ শতকের চতুর্থ পাদে কোন্নগরের তটে আছড়ে পরেছিল দক্ষিণেশ্বরের রামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের ভাবধারার জোয়ার।
এই বংশের চতুর্থ পুরুষ নবচৈতন্য মিত্র মধুর কণ্ঠে কীর্তন করতেন এবং কলকাতায় স্থায়ী চাকরি করতেন। তাঁর আবাল্য সংগীতপ্রীতি ছিল লক্ষ্য করবার মতো। কীর্তন বিশারদ নবচৈতন্যের উচ্চ মানের কীর্তন একদিকে যেমন শ্রোতাদের ভক্তিরসে আচ্ছন্ন করত অন্যদিকে তিনি শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণদেবেরও পরম প্রিয়পাত্র হয়ে উঠেছিলেন। দক্ষিণেশ্বরে ভবতারিণীর মন্দির আলো করে তখন ঈশ্বরানুরাগীদের ভক্তি বিতরণ করছেন ভগবান শ্রীরামকৃষ্ণ। নবচৈতন্য সরকারি চাকরিতে থাকাকালীনই ১৮৭৮ সালের শেষ বা পরের বছরের প্রথম দিকে শ্রীরামকৃষ্ণদেবকে দর্শন করেছিলেন দক্ষিণেশ্বরে। দিনটি ১১ জুন ১৮৮৫ সাল, বৃহস্পতিবার, জ্যেষ্ঠ মাসের শুক্লা এয়োদশী। পানিহাতির মহোৎসবে (দন্ডোৎসবে) কীর্রনানন্দে কাটিয়ে বিকালে দক্ষিণেশ্বর প্রত্যাবর্তনকালে গঙ্গার ঘাটে সদলবল এসে ঠাকুর নৌকায় উঠবেন,নবচৈতন্য উৎসবস্থলে এসে জানতে পারলেন শ্রী শ্রী ঠাকুর সকলকে নিয়ে গঙ্গার ঘাটে গিয়েছিলেন একটু আগেই দক্ষিণেশ্বর ফিরে যাবার জন্য। এই খবর পেয়ে নবচৈতন্য উন্মত্তের মতো ছুটে এসে শ্রী শ্রী ঠাকুরের পদপ্রান্তে আছাড় খেয়ে পড়েন এবং ‘কৃপা করুন, কৃপা করুন’ বলে করুণ স্বরে আবেগ ভরে কাঁদতে থাকেন। শ্রীরামকৃষ্ণের স্পর্শে নবচৈতন্যের দিব্যদর্শন হয়, বাহ্যজ্ঞানশূন্য হয়ে তিনি তান্ডব নৃ্ত্য শুরু করেন। শ্রীরামকৃষ্ণ ভাবোন্মত্ত নবচৈতন্যের পিঠে হাত বুলিয়ে তাঁকে শান্ত করেন। নবচৈতন্যের ভক্তি ও অনুরাগ দেখে প্রীত হয়ে শ্রীরামকৃষ্ণ তাঁর বাড়িতে ও শ্রীশ্রী গোপীনাথ জীউর মন্দিরে কয়েকবার শুভাগমন করেছিলেন। প্রথম শুভ পদার্পণ ঘটেছিল ৩ ডিসেম্বর, রবিবার, ১৮৮২ সাল। ‘শ্রীরামকৃষ্ণের কৃপাধন্য নব চৈতন্য পুস্তিকা’ গ্রন্থ এবং পরম পুজ্জপাদ শ্রীমৎ স্বামী প্রভানন্দজী মহারাজের লিখিত ‘প্রবুদ্ধ ভারত’ পত্রিকায় স্পষ্ট লেখা আছে- ‘Ramkrishna touched then Nava-Chaitanya Mitra’। শ্রী শ্রী থাকুরের ক্রিপাপ্রাপ্ত নবচৈতন্য গঙ্গার ঘাটে পর্ণকুটির তৈরি করে সাধনে ডুবে থাকতেন। গুরু ভাইদের সঙ্গে নবচৈতন্যের খুবই সখ্য ছিল এবং প্রায়ই তিনি মঠে যেতেন। গুরুভাইরাও তাঁকে দেখতে গঙ্গার ঘাটে পর্ণকুটিরে আসতেন এবং মাঝে মাঝে শ্রীশ্রী গোপীনাথ জীউর মন্দির দর্শন করতে আসতেন। গুরুভাইকে দেখতে গঙ্গার ঘাটের পর্ণকুটিরে স্বামী বিবেকানন্দও এসেছিলেন একদা। সেই সময় স্বামীজীর ভাই এসেছিলেন বরাহনগর মঠে, তখন তুলসী মহারাজকে পাঠানো হয়াছিল স্বামিজীকে নিয়ে যেতে। নবচৈতন্য মরদেহ ত্যাগ করেন ১৯০৮ সালে। যুগাবতার শ্রী রামকৃষ্ণের হাতে গড়া গৃহস্থ সন্ন্যাসী নবচৈতন্য কোন্নগরের ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন।
নবচৈতন্যের তৃতীয় পুরুষ শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ মিত্র জন্মগ্রহন করেন কোন্নগরে ৪ মার্চ, ১৯০৫ সালে, শিব চতুর্দশীর দিনে। মাতা সুবোধবালা কলকাতার ঝামাপুকুরের বিখ্যাত এটর্নি ঘোষ বংশের মেয়ে। তখনকার দিনে তিনি অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়েছিলেন। শৈলেন্দ্রকৃষ্ণর প্রাথমিক শিক্ষা কোন্নগরএ, কিন্তু পিতার কর্মস্থল পরিবর্তনের জন্য তাঁকে পেসয়ার, লাহোর ও লক্ষ্নৌ যেতে হয়। লক্ষ্নৌতে পড়ার সময় তিনি প্রবাসী-বাঙালী স্বনামধন্য অভিনেতা পাহাড়ি সান্যালের সহপাঠী ছিলেন।
১৯১৮ সালে মাত্র তেরো বছর বয়সে শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ পিতৃহারা হন। মাতা,এক বিধবা পিসিমা এবং তিনটি অবিবাহত বোন-এই অল্প বয়সে সংসারের সমস্ত দায়িত্ব এসে পড়ল তাঁর ওপর। দেবোত্তর বাড়ি ও জমিছাড়া নগদ টাকাপয়সা কিছুই তাঁর হাতে ছিলনা। ছেলের বয়স অল্প থাকায় পিতা অঁতুলকৃষ্ণ মিত্র পাড়ায় কিছু হিতৈষী বন্ধুর কাছে কিছু কিছু অর্থ গচ্ছিত রেখেছিলেন, প্রয়জনে যাতে সে অর্থ পুত্রের হস্তগত হয়। পিতা মারা যাওয়ার পর শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ তাঁদের কাছে অর্থের সন্ধানে গেলে গচ্ছিত অর্থের কথা তাঁরা সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন। মাতুল অক্ষয় কুমার ঘোষের সহায়তায় তিনি বৌবাজারে টাইপ শিখতে আরম্ভ করেন। ছ’মাসের মধ্যে হাতের স্পিড পঞ্চাশ ওঠায় তাঁর মাতুল-দাঁ-সেন অ্যান্ড কো-তে তাঁর চাকরি করে দেন। বেতন খুবই অল্প, তবু কর্তব্য-কাজ সময়মতো শেষ করে অল্পদিনের মধ্যেই তিনি কোম্পানির একজন দায়িত্বশীল কর্মচারী হয়ে উঠলেন। মাত্র একুশ বছর বয়সে বিবাহ হয়। বৈদ্যবাটির বসু বংশের কুমারী আশালতার সঙ্গে।
১৯২৮ সালে মাত্র তেইশ বছর বয়সে শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ বাড়িতে আমের চাটনি তৈরি করবার প্রস্তুতি নিতে থাকেন। সহধর্মিণীর সাহায্যে চাটনি তৈরি করবেন, তাই উপকরণ জোগাড় করতে শুরু করলেন। কাঁচা আম জোগাড় করে কী করে খোসা ছাড়িয়ে স্লাইসগুলি নিয়ে আঁটি ফেলে দিয়ে সংরক্ষণ করতে হবে তা আশালতাকে দেখিয়ে দিলেন। চাটনি তৈরি করার জন্য দরকারি বাসনপত্র, সংরক্ষণের জিনিস, বোতল এবং প্যাকিং –এর জিনিসপত্র কিনে আনতে লাগলেন। অর্থসংস্থান নেই, পুঁজি বলতে মাস-মাহিনা ওই তিরিশ টাকা, কোম্পানিতে চাকরি করে সেই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে শুধু মনের জোর আর আদর্শ সম্বল করে ঝাঁপ দিলেন জীবনযুদ্ধে। কোম্পানিতে এগারো বছর কাজের সুবাদে আমের চাটনি তৈরি করা শিখে, অফিস থেকে বাড়ি ফিরে সারা রাত ধরে চাটনি তৈরি করতে লাগলেন। পরেরদিন বোতলে ভর্তি করে, বোতলে ছিপি লাগিয়ে গালা করে রেখে লেবেল লাগিয়ে রাখতেন। যাতে পরেরদিন সকালে কলকাতায় নিয়ে যেতে পারেন। সকালে এই ভর্তি বোতল বাজারের ব্যাগে নিয়ে সাইকেলে স্টেশন যেতেন। হাওড়ায় এসে স্টেশনের বাইরে অপেক্ষারত লালু নামে এক ঝাঁকামুটের মাথায় সেই বোঝা দিয়ে সাহেব পাড়ায় চৌরঙ্গী এবং নিউ মার্কেটের দোকানে দোকানে এগুলো দিয়ে আসার নির্দেশ দিয়ে ঠিক সময়মতো তিনি অফিসে হাজিরা দিতেন নিয়মিত।
বাড়িতে এই চাটনি তৈরি করার কাজ বছরতিনেক করার পরই শৈলেন্দ্রকৃষ্ণকে চাকরি ছাড়তে হল। কারণ চব্বিশ ঘণ্টা এই কাজে লেগে না থাকলে কাজ বাড়ানো যাবে না। কয়েকজন বন্ধু এর আগে কিছু টাকার বন্দোবস্ত করে এই ব্যবসায় যোগ দেন,কিন্তু তিন বছর পরে দুজন থাকলেন, দুজন ছেড়ে দিলেন-তাঁদের মনে হয়েছিল এ কাজে পরিশ্রম বেশি, লাভ কম।
আমের চাটনি ফেরি করে বিক্রি করার সময় সাহেব পাড়ায় শৈলেন্দ্রকৃষ্ণর নিয়মিত যাতায়াত ছিল। তাঁর নিষ্ঠা, নিয়মানুবর্তিতা ও সততা Sir Tallek Mackoy-এর দৃষ্টি আকর্ষণ করে। Sir Machoy ছিলেন Sir Inchkep-এর ভাগিনেয়। তিনি তৎকালীন কলকাতায় ইউরোপীয় সমাজে বিশেষ প্রতিপত্তিসম্পন্ন ছিলেন। তাঁরই সুপারিশে শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ খিদিরপুর Garden Reach Workshop এবং The River stream Navigation Company-তে তিনি আচার সরবরাহের নিয়মিত অর্ডার পেতে থাকেন। তিন বছর যেতে না যেতেই কোম্পানি যখন বেশ ভালো ব্যবসা করতে শুরু করেছে, যে দুজন বন্ধু অংশীদার ছিলেন, তাঁরা তখন মালিক হতে চাইলেন। সেই সময় কাজের সুবিধার্থে ১৫০ নং, মানিকতলা মেন রোডে একটি বাড়িসমেত গুদাম ভাড়া নেওয়া হয়েছিল এবং সেখানে কাজও শুরু হয়েছিল। গোলমালে কারখানা বন্ধ হয়ে গেল এবং হাইকোর্টে মামলা রুজু হল। তিন বছর পর ওই মামলার নিষ্পত্তি হল। শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ যেমন মালিক ছিলেন, তেমন মালিকই থাকলেন।
১৯৪৩-৪৪ সালে পুনরায় অচল কারখানায় সচল হল। টাকার প্রয়োজন দেখে স্ত্রী আশালতা গায়ের গয়না খুলে দিলেন। গয়না বিক্রির টাকায় কারখানা পরিষ্কার করা হল, মাল তৈরি করার যোগাড়যন্ত্র করতেই সব টাকা খরচ হয়ে গেল। তখন তিনি ওই বাড়ি ও গুদামের মালিক জীবনকৃষ্ণ দে মহাশয়ের কাছে গিয়ে সব কিছু খুলে বললেন এবং কারখানা যেন আবার চালু করা যায় সেজন্য সাহায্য চাইলেন। জীবনকৃষ্ণ দে মহাশয় শৈলেন্দ্রকৃষ্ণের ব্যাকুলতা ও অধ্যবসায়ে প্রীত হয়ে কয়েকটি শর্তে সাহায্য করতে রাজি হলেন। শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ শর্ত মেনে উৎপাদন শুরু করলেন এবং অচিরেই উৎপাদন বৃদ্ধি করে পুরানো খরিদ্দারদের চাটনি সরবরাহ করতে লাগলেন। আগে যশোহর, খুলনা থেকে আমের স্লাইস কেনা হত, কিন্তু দেশভাগ হওয়ায় আমদানি বন্ধ হল। ১৯৪৯ সাল থেকে মালদহে স্লাইস তৈরি করা শিখিয়ে ওখান থেকেই যাতে বরাবর কারখানায় আমের স্লাইস আসে তার ব্যবস্থা পাকা করতে দশ বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করতে হল তাঁকে।
দেশে সরবরাহ চলাকালীনই বিদেশে পত্র দিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করতে লাগলেন শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ। ১৯৪৯ সালে প্রথম বিদেশের অর্ডার পেলেন। উৎসাহ বেড়ে যাওয়ায় মনস্থ করলেন নিজে বিদেশে গিয়ে ক্রেতাদের চাটনি দেখিয়ে, তাঁদের বুঝিয়ে বেশি অর্ডার নিয়ে আসবেন। সেইমতো ১৯৫৫ সালে তিনি সমস্ত ইউরপ, লন্ডন, আমেরিকা, কানাডায় গিয়ে ভালো অর্ডার নিয়ে এলেন। আবার পরের বছর গেলেন ব্যাঙ্কক, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, হংকং, জাপান, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড। এইসব নতুন দেশেও ভালো অর্ডার পাওয়া গেল। All India Food Preservers Association তাঁকে Eastern Zone-এর সভাপতি নিরবাচন করলেন।
সমস্ত জীবনের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে ১৯৫৬ সালে শৈলেন্দ্রকৃষ্ণের হৃদযন্ত্রের ব্যাধি শুরু হল এবং সেটা ধরা পড়ল কলকাতায় Association-এর একটা আলচনা চলাকালীন। দু’মাস কলকাতায় চিকিৎসাধীন থাকার পর চিকিৎসকের পরামর্শে বাড়িতেও একমাস বিশ্রাম নিলেন। বিশ্রামের পর শ্রীশ্রী গোপীনাথ জিউর মন্দির সংস্কারের কাজে হাত দিলেন। তিনশো বছরের পুরানো মন্দির অনেক জায়গায় ভেঙে যাওয়ায় সমস্ত মন্দিরই ভেঙে নতুন করে তৈরি করলেন। ১৯৬৭ সালে এই নবনির্মিত মন্দির উদ্বোধন করেন বেলুড় মঠের শ্রীমৎ স্বামী অব্জজানন্দজী মহারাজ এবং সাহিত্যিক শ্রী তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায় মহাশয়। এরপর শৈলেন্দ্রকৃষ্ণ ১৯৫৯ সালে কোন্নগরে আট বিঘা জমি ক্রয় করে নতুন কারখানা তৈরি শুরু করেন। ১৯৬১ সালের শেষের দিকে বাড়ি তৈরির কাজ শেষ হয়। ১৯৬২ সালের প্রথম থেকেই এই নতুন কারখানায় চাটনি তৈরি করে তিনি রপ্তানি শুরু করেন। মানিকতলার কারখানা বন্ধ করে দিয়ে আচার তৈরি করার যন্ত্রপাতি এবং কাজের লোক নতুন কারখানায় নিয়ে এলেন। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ষাটজন লোক এই কারখানায় জড়িত ছিল। কারখানার নাম প্রথমে ছিল MIDA & Co. (P) Ltd। ১৯৬৯ সালে ঘুসুড়িতে Ajanta Fine Foods Co.-এর এক নতুন কারখানা করে তাতেও আমের চাটনি তৈরি করে বিদেশে রপ্তানি করতে লাগলেন। পরবর্তী সময়ে Sexona Condiments-এর নামেও চাটনি বিদেশে পাঠাতে লাগলেন।
১৯৭২ সালে দেখা দিল শৈলেন্দ্রকৃষ্ণের ডায়াবেটিস রোগ। ১৯৭৩ সাল থেকে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত ভুগলেন, দারুন ব্যথায় (Neuretic pain) কষ্ট পেলেন। ইউরোপ, লন্ডন, আমেরিকা, কানাডায় পুজোর পরে গিয়ে ১৯৮১ সালের নভেম্বরে ফিরে এলেন অসুস্থ অবস্থাতেই। শরীর বারেবারেই তাগাদা দিচ্ছে, বিশ্রাম নাও। তাও ১৯৮২ সালের ২ ফেব্রুয়ারি প্রায় জোর করেই ব্যঙ্কক, সিঙ্গাপুর, নিউজিল্যান্ড হয়ে যখন অস্ট্রেলিয়ার সিডনি, মেলবোর্নে গিয়েছেন, অত্যন্ত অসুস্থ হয়ে পরলেন। ডাক্তার দেখান, ওষুধও খান, কিন্তু এডিলেডে এক হোটেলের ঘরে সবার অজান্তে শেষ হয়ে গেল এক প্রতিভাবান পুরুষের যাত্রা। এখন অবশ্য আরো নতুন নতুন দেশের অর্ডার যুক্ত হওয়ার MIDA & Co. (p) Ltd-এর উৎপাদন ও রপ্তানি বহুল পরিমাণে বেড়েছে। শতাধিক লোক এখন সেখানে কাজ করে। নাটমন্দিরের আয়তন ও বেড়েছে। সমস্ত মন্দির ও নাটমন্দিরে শ্বেতপাথর বসিয়ে নিত্যপূজা, বিশেষ পূজা, আরতি, হোম আজও সমানে চলছে। ভক্তের সমাগমও অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।
১৯৮০ সালে তেসরা জুন পরম শ্রদ্ধেয় শ্রীমৎ স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী এবং পরম পূজনীয় শ্রীমৎ স্বামী অভয়ানন্দজী মহারাজদের বেলুড় মঠ থেকে নিজে গাড়ি চালিয়ে কোন্নগরের শ্রী শ্রী গোপিনাথ জীউর মন্দির এবং নবচৈতন্যের বাড়িতে নিয়ে এসেছিলাম। পূজনীয় মহারাজগণকে মন্দিরে বিগ্রহ দর্শন করিয়ে কথায় কথায় বলেছিলাম নাট মন্দির চওড়া কম লম্বা বেশি থাকায় পঠন পাঠনের সময় ভক্তদের খুব অসুবিধা হচ্ছে। আমার ইচ্ছা পূর্বদিকে চওড়া বেশী করিলে উহাতে শ্রী শ্রী ঠাকুর, মা, স্বামীজীর প্রতিকৃতি রেখে দিয়ে সন্ধ্যায় আরিত্রিক ভাল ভাবে করা যাবে। পূজনীয় মহারাজগণ বললেন কেন শুধু শুধু এত খরচ বাড়াচ্ছ পরবর্তীকালে কে সংরক্ষণ করিবে। আমি কথা প্রসঙ্গে বলেছিলাম মহারাজজী তিনশত পঞ্চাশ বছর এই মন্দিরে শ্রী শ্রী গোপিনাথ জিউ পুজিত হচ্ছেন উহা আমাদের ভরসাতে নিশ্চয়ই নয়। সব শুনে বললেন যাহা ভাল মনে কর করিও। উহার পর ওই নাট মন্দির বাড়িয়ে সমস্ত মন্দির ও নাট মন্দিরে শ্বেত পাথর বসিয়ে নিত্য পূজা, বিশেষ পূজা, আরতি, হোম আজও সমানে চলছে। ভক্তের সমাগমও অনেক বেড়েছে।
১৯৮৩ সালে পরম পূজনীয় প্রেসিডেন্ট শ্রীমৎ স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজকে জানালাম, কোন্নগরে ঠাকুরের শুভাগমনের একশত বৎসর পূর্তির উৎসব পালন করার অভিলাষের কথা। তিনি বললেন, ‘অমরেন্দ্রনাথ, তুমি পূজনীয় ভরত মহারাজকে সব বল, উৎসব যাতে সর্বাঙ্গ সুন্দর হয় তার সমস্ত ব্যবস্থা উনিই করে দেবেন।’ আমি পূজনীয় ভরত মহারাজের কাছে গিয়ে সবিস্তারে সব জানালে তিনি সঙ্গে সঙ্গে টেলিফোনে পূজনীয় শ্রীমৎ প্রভানন্দজী মহারাজকে বললেন, ‘আমি কোন্নগরের মিত্তিরকে পাঠাচ্ছি। ওঁদের ঠাকুরবাড়িতে শ্রীরামকৃষ্ণদেবের শুভাগমনের শতবর্ষ পূর্তির উৎসব হবে। তার সুষ্ঠু ব্যবস্থা করে দেবে, যাতে ওঁদের কোনো অসুবিধা না হয়।’ আমি বলেছিলাম একদিনের উৎসবের কথা, কিন্তু মহারাজরা বললেন, কথামৃত অনুসারে শ্রীশ্রী ঠাকুর ওখানে গিয়েছিলেন ৩ ডিসেম্বর, কিন্তু এবার ওইদিন শনিবার পড়ায় উৎসব হবে তিনদিনের। শুক্রবার উদ্বোধন, শনিবার বিশেষ পূজা ও বিকালে ধর্মসভা এবং রবিবার সকালে বিশেষ হোম দু’জায়গায় এবং সাধু-ভাণ্ডারা হবে। সমস্ত অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য পূজনীয় নিরলিপ্তানন্দজী মহারাজের ওপর সব দায়িত্ব দিলেন। অনুষ্ঠান সেই ভাবেই হল। প্রথম দিন ২ ডিসেম্বর সকালে মন্দির শ্রীশ্রী ঠাকুর, মা ও স্বামীজীর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করে নগর পরিক্রমা করা হবে। সেইজন্য গাড়িতে শ্রীশ্রী ঠাকুর, শ্রীমা ও স্বামীজীর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেছেন পরম পূজনীয় শ্রীমৎ স্বামী নিরলিপ্তানন্দজী মহারাজ। বিকালে স্বামীজীর ওপর একটি সিনেমা দেখানো হয় এবং কীর্তন করেন কলকাতার কীর্তনবিশারদ কানাইলাল বন্দ্যোপাধ্যায়। ৩ ডিসেম্বর সকালে শ্রীশ্রী গোপীনাথ জীউর এবং শ্রীশ্রী ঠাকুর, শ্রীমা ও স্বামীজীর বিশেষ পূজা, হোম এবং অন্নভোগ হয়েছিল। বেলুড় মঠ ও অনন্যা মঠের পনেরো জন সন্ন্যাসী প্রসাদ পেয়েছেন। ভক্তদের বসে প্রসাদের ব্যবস্থা হয়েছিল। বিকালে ধর্মসভায় শ্রীমৎ স্বামী নিরাময়ানন্দজী মহারাজ, শ্রীমৎ স্বামী আপ্তকামানন্দজী, শ্রীমৎ স্বামী রুদ্রাত্মানন্দজী এবং পূজনীয় সর্বত্মানন্দজী মাহারাজ দর্মালোচনা করেন। ৪ ডিসেম্বর সকালে বিশেষ পূজা, হোম, অন্নভোগ, পোলাও তৎসহ তরকারি, চাটনি, পায়েস, মিষ্টান্ন শ্রীশ্রী ঠাকুর, শ্রীমা ও স্বামীজীকে দুই জায়গায় নিবেদন করা হয়। দুপুরে সাধু-ভাণ্ডারাতে সাতাত্তর জন সাধু এসে জগ দেন বেলুড় মঠ ও অন্যান্য মঠ থেকে। প্রত্যেক সন্ন্যাসী মহারাজকে প্রসাদের পর কম্বল ও প্রণামী দেওয়া হয়। সেদিন চারশো ভক্ত দুপুরে বসে প্রসাদ পান। বিকালে ধর্মসভায় পূজনীয় শ্রীমৎ স্বামী বন্দনানন্দজী, শ্রীমৎ স্বামী গহনানন্দজী, শ্রীমৎ স্বামী প্রভানন্দজী মহারাজ শ্রীশ্রীঠাকুর, শ্রীমা ও স্বামিজীর অনুধ্যান করেন। পূজনীয় স্বামী প্রভানন্দজী মহারাজ নবচৈতন্যের সমন্ধে, ঠাকুরের গৃহস্থ সন্ন্যাসী-তৈরি করা এবং বার বার এই কোন্নগরে শ্রীশ্রী গোপিনাথ জীউর মন্দিরে এবং নবচৈতন্যের বাড়িতে আসা সমন্ধে বিশদ আলোচনা করেন। এইভাবে প্রতি বছর শ্রীশ্রী ঠাকুরের শুভাগমনের উৎসব ডিসেম্বর মাসের প্রথম রবিবার পালন করা হয়, আজও। এই ধর্মসভায় বেলুড় মঠ ও অন্যান্য মঠ থেকে দায়িত্বে থাকা পূজনীয় মহারাজগণ আগেও এসেছেন, এখনও আসেন অমৃতবানী-পরিবেশন করতে।
পূজনীয় দর্শনানন্দজী মহারাজের সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের পরিচয়। মঠে গেলেই সর্বত্র প্রণাম করে মহারাজের ঘরে যেতাম। মাহারাজের সাথে কাথীর শ্রীরামকৃষ্ণ মঠে জাওয়া হয়েছিল। এইভাবে দীর্ঘদিন যাওয়ার পর একদিন চুপি চুপি আমাকে বললেন, ‘মিত্তির,আমার কাছে এমন এক বহুমূল্য জিনিস আছে জা অতি দুর্লভ। শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণদেবের পুণ্য অস্থি আছে। তা থেকে একটি ছোট শিশিতে ভর্তি করে দিচ্ছি, সেটি নিয়া গিয়ে ঠাকুর ঘরে রাখবে এবং সকাল-সন্ধ্যায় জপ, ধ্যান করবে, কাউকে প্রকাশ করবে না।’ আগে কাঁকুড়গাছি যোগোদ্যান অঞ্চলে বৃষ্টি হলে জল জমে থাকত। এক বছর অতিবৃষ্টি হয় এবং ঠাকুরঘরে এমন জল ঢোকে যে, কয়েকদিন ঘরের জল বার করা যায় না। তাতে ঠাকুরের বেদির তলায় শ্রীশ্রী ঠাকুরের পুণ্য অস্থি যে পাত্রে রাখা ছিল, মুখ বন্ধ অবস্থাতেও তার ভেতর জল ঢুকে যায়। তা তুলে নিয়ে গিয়ে ছাতে রেখে দু’তিনবার কাপড়ের মধ্যে ঢেলে গঙ্গাজলে ধুয়ে নতুন পাত্রে রেখে, তারপর মুখ ভালো করে বন্ধ করে একটির মধ্যে আর একটি পাত্রে রেখে আবার মুখ বন্ধ করে বেদি উঁচু করে তার তলায় রাখা হয়। তারপর খুব ছোট ছোট কাপড়ে যা লেগেছিল তা গঙ্গাজলের সঙ্গে একটি বোতলে গোপনে রেখেছেন একজন মহারাজ। পূজনীয় দর্শনানন্দজী মহারাজের সঙ্গে ওই মহারাজের খুব সখ্যতা ছিল। পূজনীয় দর্শনানন্দজী মহারাজ যোগোদ্যান মঠে গেলে ওই মহারাজ একটি শিশিতে ভর্তি করে সবার অলক্ষ্যে সেটা তাঁকে দেন। মহারাজ বেলুড় মঠে নিজের ঘরে এসে তা রেখে দেন। কাউকে সে কথা জানাননি। বৃদ্ধ বয়সে, ওই ঘটনার ছ’বছর পরে অসুস্থ হয়ে আরোগ্য ভবনে এসে থাকতে আরম্ভ করেন। এর দু-আড়াই বছর পরে যে মহারাজজী যোগদ্যান মঠে পূজনীয় দর্শনানন্দজী মহারাজকে শ্রীশ্রী ঠাকুর রামকৃষ্ণদেবের পূণ্য অস্থি দিয়ে আরোগ্য ভবনে এসে থাকতে আরম্ভ করেন। এই মহারাজের আরোগ্য ভবনে দু-আড়াই বৎসর থাকাকালে কী করে হঠাৎ জানাজানি হয়ে যায় যে, মহারাজের কাছে শ্রীশ্রী ঠাকুরের অস্থি আছে। পূজনীয় শ্রীমৎ শ্বামী আত্মাস্থানন্দজী মহারাজ আরোগ্যভবনে এসে মহারাজের কাছ থেকে শিশিটি ণীয়া যান। এ কথা আমাকে পূজনীয় দর্শনানন্দজী মহারাজ বলেছিলেন। আমি শ্রীশ্রী ঠাকুরের ওই পুণ্য অস্থি একটি রৌপ্যাধারে করে সিংহাসনের ওপর রেখে তিনতলায় ঠাকুর ঘরে রাখি। ওই ঘরে শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণদেব দুবার এসে বলেছিলেন। ওই ঘরে আমার সকাল-সন্ধ্যার দুই-আড়াই ঘণ্টা কাটত। এই ভাবে ত্রিশ বছর কেটেছে। অসুবিধা হল ২০১০ সালের ডিসেম্বর মাসে আমার শরীর খারাপ হওয়ায়। আমার মেয়ে আমাকে তখন উত্তরপাড়ায় তার বাড়িতে নিয়ে আসে। প্রতিদিন তিনতলার ঠাকুরঘরে সেবার অসুবিধা হতে থাকায় আমি বেলুড় মঠের কর্তৃপক্ষকে তা জানাতে তিনি বলেন, এই জিনিস বাড়িতে রাখা ঠিক হয়নি, আমি যেন তা গঙ্গায় বিসর্জন দেই। কথা শুনে আমার মন খারাপ হয়। আমি সারদা মঠের জেনারেল সেক্রেটারি প্রব্রাজিকা অমলপ্রাণা মাতাজীকে সব বলি। মাতাজী প্রেসিডেন্ট মাতাজীর সঙ্গে কথা বলে ৩১ জানুয়ারি, ২০১১, পূজনীয় লাটু মহারাজের জন্মতিথির দিন গোপীনাথ জিউ মন্দিরে এসে ওই রৌপ্যাধার সারদা মঠে নিয়ে যান। এই পুরাতন বাড়িতে আমাদের পরিবার সকলেই একসঙ্গে বসবাস করত। আমার বয়স যখন ১৫-১৬, তখনই আমার থাকার ব্যবস্থা হয়েছিল তিনতলার ঘরে। বহু পূর্বে শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণদেবেকে বিশ্রামের জন্য ওই ঘরে বসানো হয়েছিল। নবচৈতন্যের একটি ফটো টাঙ্গানো ছিল দেয়ালে, সন্ন্যাসী অবস্থার। ওই বাড়ির চারপাশে অনেক খালি জমি ছিল, সেই জন্য রাত্রিগুলো নিস্তব্ধ থাকত। পূর্ণিমার জ্যোৎস্নায় স্নাত চরাচর এক অপরূপ স্নিগ্ধ পরিবেশ সৃষ্টি করত। কখনো কখনো নূপুরের ধ্বনি শুনে ঘুম ভেঙে জেত। আমার অনুভুতি হত যেন শ্রীরাধিকা শ্রীকৃষ্ণের সঙ্গে লীলা করছেন। আমার মাকে এই অনুভুতি হয়েছিল। বেলুড় মঠে মিউজিয়াম হচ্ছে। পূজনীয় স্বামী শ্রীমৎ প্রভানন্দজী মহারাজ যে-যে বাড়িতে শ্রীশ্রী ঠাকুর পদার্পণ করেছেন, সেই সব জায়গায় গিয়ে অন্বেষণ করে শ্রীশ্রী ঠাকুরের সন্তানদের ব্যবহার করা দ্রব্যাদি যা যেখানে পাওয়া যায় নিয়ে আসছেন মিউজিয়ামে রাখবেন বলে। কোন্নগরে নবচৈতন্যের বাড়িতে এসে তিনতলার ঘরে এবং সিন্দুক থেকে শ্রীশ্রী ঠাকুরের ব্যবহার করা পাথরের বাসন (থালা, বাটি, গেলাস) এবং নবচৈতন্যের ব্যবহৃত কিছু কাঁসা, পিতলের দ্রব্যাদি এবং কীর্তনের সময় যে কঞ্জলি বাজাতেন, তাই দু’জোড়া নিয়ে গিয়ে মিউজিয়ামে রাখেন। পরে অনেক অন্বেষণের পর একটি বহু পুরাতন টেবিল-ল্যাম্প পাওয়া গেল, যার তেল ঢালার ছিপিটা না পাওয়ায় মিস্ত্রি ডেকে ছিপি তৈরি করে সেটা পরিষ্কার করে মিউজিয়ামে শ্রীশ্রী গোপিনাথ জীউর মন্দিরে বহু সাধু-সন্ন্যাসীর সমাগম হয়। বহুদিন থেকেই চলে আসছে এই যাতায়াত। তাঁদের অনুভুতিতে প্রকাশ পেয়েছে এই মন্দিরের বিগ্রহ জিগ্রত। সমস্ত মন্দির প্রাঙ্গণ একটি তীর্থক্ষেত্র। ঠাকুর শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণদেব বার বার এই মন্দিরে শুভাগমন করেছেন এবং বহু লীলা করেছেন। এর ফলে যে মন্দির তীর্থ ছিল, তা মহাতীর্থে পরিণত হয়ে আজও বিরাজিত। নিত্যপূজা, আরতি এবং বিশেষ পূজা ও বসে প্রসাদ বিতরণ সবই সুষ্ঠুভাবে আজও বহমান ঝর্ণাধারার মতো চলে আসছে।