Gopinath Jew in Mitra family- Konnagar

Scared memories of Swami Vireswaranandaji Maharaj

Scared memories of Swami Avayanandaji Maharaj




Scared memories of Swami Vireswaranandaji Maharaj In English

It had been my habit from the very student life to pay a visit to Dakshineshwar to salute mother Bhabatarini and spend some time in the room inhabited by Lord Ramakrishnadev Paranhansa. I used to go to Belur math, too, for rendering my pranam to Shri Thakur and remembering Him along with Swamiji and Shrima while spending my time by the river Ganges. That was the time then I started to visit Belurmath. Most of the days, then, I spent my afternoons at Belurmath after my return from the workshop at Konnagar. I did not miss Sunday mornings to pay my tribute toThakur, take the pleasure of spending time with holy men and then returning home at noon. This regular visit accelerated my attachment with Belurmath more and more.
Respected Swami Vireswaranandaji Maharaj took over the charges as head of the institution in 1966 after the demise of Swami Madhabanandaji Maharaj in 1965. I paid occasional visit to him till 1970, had the pleasure to talk to him, rendered my pranam and thus the attachment grew stronger day by day. My visit became more frequent afterwards. It was my habit to visit respected Bharat Maharaj also after I paid my tribute to Lord Ramkrishnadeva and Revered President maharaj . Revered Bharat Maharaj never forgot to ask me whether I went to President Maharaj. Three members of our family had been consecrated in an auspicious day of 1978 at Belurmath by Vireswaranandaji Maharaj. My desire to have the company of the sages became irresistible then. Renowned ancestor of Mitra family Sri Ramdas Mitra in the past had established the image of Lord Gopinath Jew a twin idol of Lord Krishna and sri Radha in a newly built temple at our vacant land adjacent to our house. His disciples were Sree Nabachaitanya (Nabai) Mitra and Sree Manomohan Mitrawho had been referred in Kathamrita as two of the attendants of ThakurRamkrishnadeva. Paramhansadeva Himself paid a visit to this temple and took immense pleasure and enjoyed the'Anna-bhoga’ of Lord Gopinath jew. In His first visit, He stepped down at the ferry ghat of Konnagar with Nabai, Manomohan, Rakhal and others and proceeded dancing towards the temple with singing hymns with the band. He was in complete meditation when He reached the temple'. Everybody present there were overwhelmed with the sacred state of Thakur. Thakur took rest in the roomof Nabai Chaitanya in the second floor and enjoyed . His lunch with ‘Annabhoga’ of Lord Gopinath Jew in the drawing room of Manomohan Mitra in first floor.
Ramkrishnadeva’s visit to this temple and requested him to do the favour of coming over there. He did not pay much attention to that, but I was not to give in. One day he told me, “Don’t bother with my coming there. Many great saints will visit the sacred temple in future. I humbly pray to go there but I can’t fix up the date, this is done by others. You will surely be informed if they can manage it”. I requested President Maharaj not to fix up the date in May, June’and July only because we were heavily engaged that time in Malda, Nadia and Murshidabad to procure mangoes for our family trade of mango jelly and pickle. We would perhaps not be able to arrange reception for him properly then Long two years had passed by, I had but to remind Maharaj of my request once again. Maharajji cast a naughty smile at my face and told me the story of a little girl lived in Belur who repeatedly came and requested him to go to her house. He gave her consent over there but in vain. Informations reached him that the girl had been married and went to her father-in-law’s house. Then one day, when President Maharaj was at Gauhati, Assam to give initiation to many places there, one married lady came to him and asked whether the Maharaj recognized her. He had to confess that he did not. She answered then that her own home was in Belur and she requested him many a times in her childhood to come over to her house. He consented but could not find time In last ten years. Now that the house of her father-in-law was nearby would he be so kind as to visit that house? This time President Maharaj assured her that the time had come and he was sure to visit her father-in-law’s house the next day.
I asked respected Maharajji if that was an indication that I too have to wait for such a long time. Maharajji laughed aloud and said, “No,'Thakur Himself had visited your temple. It should not be compared to others”. But I had to wait three years after so much had been said.It was the morning of 2nd June, 1980 that a representative of Swami Nirliptanandaji (Ranajit Maharaj) handed me a letter in which he requested me to see respected Bharat Maharaj at Belurmath as quick as possible. It was a very busy session of our business. We had been receiving 3 to 4 trucks of mangoes coming from Malda and Murshidabad . The process was to vacate the trucks readily, to weigh mangoes and again filling the wooden drums with mangoes after proper medication so that they did not get rotten or attacked by fungus. The process was on with fall swing. I was to supervise all these things. So I did not manage time before 8 P.M. to pay salute and see Revered Bharat Maharaj at Belurmath. He was anxiously waiting for me and informed me that the date had been fixed tomorrow to visit our temple and that both we and President Maharaj had decided to go there. I said hesitatingly, “ How is it that you fixed the date during this busy session of mango procurement. It would have been better if you could come two months later. You could not fixed any fault in our reception then.” Revered Bharat Maharaj turned a deaf ear to me and ordered me to see President Maharaj immediately and to inform him the exact time in the morning when I would be able to come here to take them to my home. Still I informed President Maharaj of the difficulties we had that time, but he was doubtful whether the fixing of another date was possible at all. He assured me that they were coming to pay tribute to Lord Gopnath Jew and they were about to stay only one or one and a half hours in our house. I had to manage that much.I was overwhelmed with joy in anticipation of the visit of such great sages in our house. How lucky I was indeed. I bade farewell after I rendered my pranam to respected Bharat Maharaj and informed him that I was coming to Belurmath for them the morning next at 9 A.M. My mother resided at Laketown then. I went there at first, took her with me, purchased some utensils of bell-metal, new clothes, warm sheets etc. and returned with my mother to the house of Konnagar. I went to reputed sweet maker Felu Modak at Rishra after that and ordered some special sweets with some advance. I returned home at 10 P.M.
The preparation for the reception of the respected Maharajas started from the early morning next day. I went to the shop of Felu Modak at Rishra at 8 A.M. and took delivery of the ordered sweets. I drive my ambassador Car to Belurmath exactly at 9 A.M. I parked my car at the residence of Vireswaranandaji Maharaj (Girish Memorial) and sent message to him. Swami Nageswaranandaji (Arun Maharaj) proceeded to my car with respected President Mharaj . President Maharaj took his seat at the back and Arun Maharaj sat by my side. I took my car to the residence of Swamiji and parked below the mango tree. Mantubabu came with respected Bharat Maharaj and made him seated in back. Two attendants of the Maharajas sat by my side. We bade salute in memory of Shree Thakur, Mother Jagajjanani and Swamiji and started for Konnagar. Respected Bharat Maharaj requested me to drive slow near the crowded street of Uttarpara bazaar. It was just after 10 A.M. that we reached the Temple of Gopinath Jew at Konnagar. Ladies of our house as well as the neighbouring maids received respected Maharajas by blasting conches with their mouth. A festive mood was created at once.
Respected President Maharaj and respected Bharat Maharaj along with two attendants of them paid visit to Lord Gopinath Jeu. Our horned-stead is just in front of the temple. Our ancestor and great devotee of Thakur, Sri Nabachaitanya Mitra lived in this very house. Arrangement was made at a broad room in the first floor so that the Maharajas might take rest .t I lead them to the stair-case but the house was 350 years old and the stair-case was so narrow that two persons could not ride it side by side. Respected .President Maharaj and his attendants Arun Maharaj went up stairs and took their seats in the spacious room. But respected Bharat Maharaj refused to ride the stairs and told me he could not venture it with his heavy body. I lead him to another stair¬case with railing in both sides and broader then the previous one. Respected Maharaj inspected that but stuck to his decision and told me not to request again .to go to the upper floor, he would better be seated in the portico of the temple Repeated request from my neighbours and devotees failed, he took his seat in the portico. There was load-shedding for a few minutes but we managed it somehow
A little boy, by the instruction of my mother, garlanded maharaj with a thick garland of tuberose. My mother offered him clothes and warm sheets , bowed down to him and sat at his feet. Maharajji accepted them with pleasure . He enquired how the worship of Lord Gopinath was done. My mother told him that three families used to take the responsibility by turn. Each family performed one special worship every year but some festive worship were common among the family and they are Holi, full moon in Rush, Durgashtami, Janmashtami (birth day of Lord Krishna) , Shivaratri and the worship of Goddess Lakshmi four times in a year. Greatest amongst those was Holi . The worship was done with much grandeur , with fruits and rice dedicated to Lord Gopinath Jeu. About 500 devotees take Prasad. Kumari-puja is performed every year and a married Brahmin lady is offered sweets and new clothes. This is the custom of this family. Maharaj appreciated this and told that it was very good to share the responsibility unitedly.
But when Revered President Maharaj found that Revered Bharat Maharaj had been seated at ground floor , he too came down there. Ladies of my family became engaged to receive him properly. Respected President Maharaj was eager to see the house of great devotee Manomohan Mitra , but we discouraged him as the house was deserted and almost a haunted house then. But he went in ront of the house to render his respect. Respected President Maharaj and Bharat Maharaj took their seats in the terrace of the house of Nabachaitanya Mitra ( i.e. our house), and they had been offered cold drinks and sweets. President Maharaj asked me to distribute sweets from his dish among the devotees present there. My mother offered President Maharaj and Bharat Maharaj the utensils of bell-metal bought for them . Respected Bharat Maharaj wanted to know how the maintenance was possible of that age-old house. I frankly admitted that present resident of the house was only two, I myself and my wife . Some servants look after the house and we have to take financial responsibility to repair any damage which is frequent occurance. I told President Maharaj of my earnest desire to extend the portico of the temple to place big photographs of Sree Sree Thakur, Sreemaa and Swamaji and regular reading of their preaches with offering ceremonial lights to them every evening. I begged his blessings for that. He advised me to do what was urgently needed and to be alert with the expenses. Now was’a time they returned to Belurmath. I drove them back there after their stay with the temple of Lord Gopinath Jew for one and a half hour
I gave Maharajas some information of our family business of producing mango pickles while returning from our house and told them that the whole production was exported to foreign countries. After their visit to our house one day, when I visit paid my tribute to President Maharaj and bowed down to Bharat Maharaj, he told me, “Look, we sadhus don’t get anything in our meal except dal and curries. It would be delicious if one item of pickle is added to it.” From then onward I supply our mango pickles regularly in Belurmath. Respected Swami Vireswaranandaji used to tell me that Ramkrishna Mission was not composed only with saints and celibates or devotees and pupils. Those who believed in the ideology of Sri Ramakrishna, Sri Ma and Swamiji are part and parcel of Ramkrishna Mission and the whole community should be treated as Mission family.
The second assembly of Sree Ramkishna Math and Mission was held in December, 1980.1 had always been by respected Bharat Maharaj so that works been done accordingly to his direction. The assembly was over successfully. I informed respected Swami Vireswaranandaji that I wanted to be with Respected Bharat Maharaj to follow his directions. Revered Bharat Maharaj was satisfied with my service. He told me afterwards, “Have faith on Thakur Paramhansa deva and perform your duties duly. If your faith is genuine, He’ll clear all the obstacles , all difficulties, only you have to be sincere and honest.Revered ”Bharat Maharaj ,the senior most saint of the Math, had the longest friendship with respected Swami Vireswaranandaji Maharaj and he was by his side in will or woe. President Maharaj always asked us to consult Revered Bharat Maharaj first whenever we would go to him with any problem. He, off course, commented on Bharat Maharaj’s opinion and decided every delicate issue.
Respected Swami Vireswaranandaji had begun to suffer from eyesight problem from 1976 and it deteriorated as the days went by.According to “Kathamrita” Sri Ramakrishnadeva paid a visit to the temple of Lord Gopinath Jeu on 3rd December, 1882. I went to respected President Maharaj with a proposal to celebrate the centenary of Thakur’s visit to Gopinath Jew Temple of Konnagar on Saturday, the 3rd December, 1983. He was happy to know the proposal, requested to do it perfectly with the able direction of Respected Bharat Maharaj. Respected Bharat Maharaj advised me to contact Swami Gahanananda and Swami Prabhananda whom he himself informed of my proposal previously. I had originally planned it for one day only, but it had finally become a three day festival. After the grand success of the festival, I presented the photo-album toPresident Maharaj, gave the detailed description of the progrmme. He was very happy with me and told me that he gathered all informations beforehand. He was particularly happy that I invited many saints of Belurmath to our festival. I bowed down to him and told him it was his blessings and love that made it possible in fact, respected Prabhanandaji conferred all the responsibilities to * respected Nirliptanandaji (Ranajit Maharaj) to make the festival a grand success.
Unfortunately, throat cancer had been detected in 1983 of respected President Maharaj. Treatment started in Ramkrishna Mission Seva-pratisthan and Thakurpukur Cancer Hospital . Later, a surgery had been made which enabled him to start his usual duties and attending devotional functions once again.On 23 rd December, 1984, President Maharaj went to Mumbai to inaugurate the diamond jubilee celebration of Ramkrishna Ashram and from then onwards to Puna. That was the last function outside the Math. President Maharaj returned to Math in January 1985. He consecrated 109 devotees on 9th February. That was his last consecration too. Respected President Maharaj expressed his desire to leave the mortal body to a Senior Maharaj in the Math. He told Dr. Niranjan Banerjee, the reputed physician, “ I am 93 now. I am ready with my bag and baggage. Why do you take me to the hospital again ? Do whatever you like in this Math, if you think my treatment is necessary, I have no objection to that. “
Respected Bharat Maharaj too told us one day, “He does not want to drag this body any more. His eyesight is very weak, suffering from cancer, feels chaste pain and is. old enough. He prays to Thakur and Sri Ma to take him away to Their abode and he wants nothing more.” His payer had been granted. He left this mortal world and' started his journey towards divine land on the 13th March, Wednesday at 3.17 p.m. Respected Nirliptanandaji (Ranajit Maharaj) asked me if I could provide sandal wood for the funeral of Maharaj and I readily purchased 27 kgs of sandal wood from Burabazar each weighing 2 to 4 kgs. I rendered a few wooden blocks in my own hand as a token of respect. Respected Atmasthanandaji Maharaj murmured then , “Do arrange some sandal wood for me too, Mitter.” I could not forget those words. In the occasion days of Bhandara I had been given the charge of decorating the front and rooms of the house of respected President Maharaj with flowers. The cot he used to sleep and where his mortal body was laid had been decorated with the garlands of tuberose. I performed my duties adequately with tears in my eyes and knowing that my last service was rendered to him. My heart ached with the memory of the company of my . devoted master. My last prayer to the almighty is that, let the bright memories of those sacred and invaluable company guide me like pole star till the end of my life.


স্মৃতিপটে পরম পূজনীয় শ্রীমৎ স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজ

ছাত্র জীবনের শুরু থেকেই আমি দক্ষিণেশ্বরে মা ভবতারিনীকে দর্শন ও প্রণাম সেরে শ্রীঠাকুর রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব যে ঘরে দীর্ঘদিন কেটেছিল, সেই ঘরে গিয়ে বেশ কিছুক্ষণ কাটাতাম। বেলুড়মঠে গিয়েও শ্রীঠাকুর প্রণাম করে গঙ্গার ধারে কিছুক্ষণ বসে থাকতাম, আর শ্রীঠাকুর, শ্রীমা ও স্বামীজীকে মনন করে আনন্দ উপভোগ করতাম। ওই সময় থেকেই আমার বেলুড়মঠে যাতায়াত শুরু হয়।
সেই সময় বেশীর ভাগ দিনেই কোন্নগর কারখানা থেকে ফিরে বিকেলে বেলুড়মঠে চলে যেতাম। রবিবার সকালে গিয়ে ঠাকুর প্রণাম করে বেশ কিছুক্ষণ সৎসঙ্গ করে দুপুরবেলা বাড়ী ফিরতাম। এইভাবে চলতে লাগল বেলুড়মঠে যাতায়াত। স্বভাবতই বেলুড় মঠের প্রতি আকর্ষণ আমার বাড়তে লাগল।
এরপর ১৯৬৫ সালে পরমপূজ্যপাদ শ্রীমৎ স্বামী মাধবানন্দজী মহারাজের দেহাবসানের পর ১৯৬৬ সালে শ্রীমৎ স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজ সংঘগুরু পদে অভিষিক্ত হন। ১৯৭০ সাল পর্যন্ত মাঝে মাঝেই পূজ্যপাদ মহারাজের দর্শন ও সঙ্গলাভ করি এবং ক্রমে ক্রমেই তাঁর প্রতি আকর্ষণ উপলব্ধি করি। ১৯৭০ সালের পর থেকে যাতায়াত আরও বাড়তে থাকে। সেই সময় নিয়মিত শ্রীঠাকুর রামকৃষ্ণদেবকে প্রণাম করে প্রেসিডেন্ট মহারাজকে প্রণাম করতাম। পূজনীয় ভরত মহারাজকে প্রণাম করতে গেলে তিনি সবসময়ই জিজ্ঞাসা করে নিতেন আমি প্রেসিডেন্ট মহারাজকে প্রণাম করে এসেছি কিনা।
১৯৭৩ সালে বেলুড়মঠে এক শুভদিনে স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজ আমাদের পরিবারের তিনজনকে দীক্ষা দান করেন। তখন থেকেই বেলুড়মঠে নিত্য যাতায়াত ও গুরুসঙ্গ পাবার ইছে বাড়তে থাকে।
অতীতে আমাদেরই উর্দ্ধতন পূর্বপুরুষ শ্রী রামদাস মিত্র মহাশয় ১০৫৫ বঙ্গাব্দে (১৬৪৮ সালে) আমাদের বাড়ীর সংলগ্ন জমিতে নতুন ঠাকুরবাড়ী তৈরী করেন ও শ্রীকৃষ্ণরাধিকার যুগলমূর্তি শ্রীগোপীনাথ জীউ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ওনার উত্তর পুরুষ ছিলেন শ্রীঠাকুরের অন্যতম পার্ষদ কথামৃতে উল্লেখিত শ্রী নব চৈতন্য (নবাই) মিত্র ও শ্রী মনমোহন মিত্র। শ্রীঠাকুর স্বয়ং এই পবিত্র মন্দিরে ‘শ্রীশ্রীগোপীনাথ জীউ’ দর্শন করতে এসে অন্নভোগ গ্রহন ও আনন্দ উপভোগ করেছিলেন। শ্রীঠাকুর যখন প্রথম মন্দির দর্শন করতে এসেছিলেন, তখন নৌকা থেকে কোন্নগর গঙ্গার ঘাটে নেমে নবাই, রাখাল, মনমোহন প্রমুখের সঙ্গে খোল করতালসহ কীর্তন করতে করতে ও উদ্দাম নৃত্যরত অবস্থায় যখন শ্রীগোপীনাথ জীউর মন্দিরে পৌঁছান, তখন তিনি গভীর ভাবস্থ। উপস্থিত সকলে ঠাকুরের ঐ সমাধিস্থ মূর্তির মাধুর্য দেখে স্তম্ভিত ও আপ্লুত হয়েছিল। শ্রীঠাকুর নবাই চৈতন্যের আমাদের বাড়ীর তিনতলার ঘরে দুবার একান্তে বিশ্রাম করেছিলাম। পাশের শ্রী মনমোহন মিত্রের বৈঠকখানা ঘরে ও দোতলার ঘরে বসে শ্রীশ্রীগোপীনাথ জীউর অন্নপ্রসাদ ও জনৈক ব্রাহ্মণ মহিলার রাঁধা নানাবিধ ব্যঞ্জন ও ভাতের মণ্ড অত্যন্ত পরিতৃপ্তির সঙ্গে গ্রহণ করেছেন।
পূজনীয় স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজকে বলেছিলাম, মহারাজজী শ্রীঠাকুর তাঁর সন্তানের সঙ্গে আমাদের ঠাকুরবাড়ীতে শুভগমণ হয়েছিল, আপনি যদি অনুগ্রহ করে আসেন তাহলে আমরা নিজেদের ধন্য মনে করব। সেদিন ঐ কথা শুনে তিনি কোন উত্তর দেন নি। নাছোড়বান্দা হয়ে প্রায়ই তাঁকে আমাদের বাড়িতে আসার জন্য অনুরোধ করতাম। একদিন তিনি আমাকে বললেন- তোমাদের বাড়ী ও শ্রীগোপীনাথ জীউর মন্দিরে দেখবে একদিন অনেক সাধু মহারাজরা যাবেন। আমার যাবার ইচ্ছে তো রইলই, কিন্তু আমি নিজেতো দিন ঠিক করতে পারবনা, কারণ ওটা আমার হাতে নেই। তবে সময় হলে তুমি জানতে পারবে। আমি মহারাজকে অনুরোধ করেছিলাম যেন ওনাদের শুভাগমনের দিনস্থির মে, জুন, জুলাই মাসে না হয়। কারন ঐ তিন মাস আমাদের পারিবারিক আচারের ব্যবসার সুত্রে আম সংগ্রহের তাগিদে মালদা, নদীয়া, মুর্শিদাবাদে আমাকে ঘুরে বেড়াতে হয়। সে ক্ষেত্রে আপ্যায়নের যথাযোগ্য ব্যবস্থায় অসুবিধা হতে পারে।
এই ঘটনার পরেও প্রায় ২ বছর কেটে গেল। শেষে একদিন মহারাজজীকে প্রণাম করে আবার বললাম, মহারাজজী, দু বছর কেটে গেল, আপনি আমাদের ঠাকুরবাড়ি দর্শন করতে এলেন না? এই কথা শুনে পূজনীয় মহারাজ মুচকি হেসে বললেন, শোন, এই বেলুড়েরই একটি ছোট মেয়ে প্রায়ই আমার কাছে এসে প্রণাম করে বলত, মহারাজ, আপনাকে আমাদের বাড়ীতে যেতে হবে। তার তাগাদায় আমি তাকে বলেছিলাম, “দেখি কবে আমি যেতে পারি, পরে শুনি তার বিয়ে হয়ে গেছে, সেই মেয়েটিও শ্বশুরবাড়ী চলে গেছে। আমার আর যাত্তয়া হয়ে ওঠেনি”। আসামে অনেকগুলো জায়গায় দীক্ষা দিয়ে যখন গৌহাটিতে আছি, একদিন একটা বিবাহিতা মেয়ে প্রণাম করে আমাকে বলল , মহারাজজী আমাকে চিনতে পারছেন? আমি বল্লুম, ‘না মা, তুমি কে বল’? সে বলল, আমার বাপের বাড়ী বেলুড়ে এবং আমি ছোটবেলায় অনেকবার আপনাকে আমাদের বাড়ী আসতে অনুরোধ করেছিলাম, আপনি কথাও দিয়েছিলেন, কিন্তু দশ বছরেও আপনার সময় হয় নি। বিয়ের পর আমি এখানে এই মঠের খুব কাছেই থাকি, আপনি যদি দয়া করে আমার শ্বশুরবাড়ীতে পদার্পণ করেন তো আমরা কৃতার্থ হব। তখন আমি তাকে বল্লুম, তখন তো তোমায় সময় দিতে পারি নি, কিন্তু এখন আমার সময় আছে, আগামীকালই আমি তোমার শ্বশুরবাড়ীতে যাব তুমি ব্যবস্থা করো।
এই কথা শুনে পুজনীয় মহারাজজীকে বললাম, মহারাজজী, আপনি কি ইংগিত করছেন যে আমাদেরও অত বছর অপেক্ষা করতে হবে? মহারাজজী সহাস্যে বললেন, তোমাদের বাড়ীতে বা শ্রীগোপীনাথ জীউর মন্দিরে শ্রীঠাকুর স্বয়ং পদার্পণ করেছিলেন। ওই অতি পবিত্র স্থানের সাথে অন্য কোন বাড়ীর তুলনা করা যাবেনা। এই কথপকথনের পরেও আমাদের অনুরোধ রাখতে মহারাজজীর দীর্ঘ তিন বছর সময় লেগেছিল।
পূজনীয় মহারাজজীকে বারবার অনুরোধ করেছিলাম যাতে বছরের মে, জুন, জুলাই মাস বাদ দিয়ে বাকি যে কোন সময় যেন তিনি আমাদের বাড়ীতে পদধুলি দেন। ১৯৮০ সালের ২রা জুন, সকালে স্বামী নির্লিপ্তানন্দজী (রণজিৎ মহারাজ) এক প্রতিনিধির মাধ্যমে চিঠি দিয়া জানালেন, আমি যেন তাড়াতাড়ি বেলুড় মঠে গিয়ে পুজনীয় ভরত মহারাজের সাথে দেখা করি। তখন কাজের মরশুম, প্রতিদিন মালদহ, মুর্শিদাবাদ থেকে ৩/৪ টে লরী বোঝাই করে আম আসছে। লরী থেকে আম খালাস করা, ওজন করা এবং কাঠের ড্রামের মধ্যে যাতে পচন না ধরে বা ছএাক না লাগে। তার জন্য যথোপযুক্ত প্রতিষেধক দিয়ে ড্রামে ভর্তি করার কাজ পুরোদমে চলছিল। এসব দেখাশোনার ভার আমারই ওপর ছিল। খবর পেয়ে তারই মধ্যে রাত ৮ য় বেলুড় মঠে গিয়ে শ্রীঠাকুর-প্রনাম করে পূজনীয় ভরত মহারাজের সঙ্গে দেখা করি। তিনি বললেন, তুমি এত রাতে এসেছ? আগামীকাল তোমাদের বাড়ীতে যাবার দিন ঠিক হয়েছে, আমি এবং প্রেসিডেন্ট মহারাজ দুজনেই যাব। আমি কুণ্ঠিত হয়ে বললাম, মহারাজ এতদিন পর এই আম সংরক্ষণের সময়ই দিনস্থি্র করলেন? আর দুমাস বাদে হলে বড় ভালো হত, আপনাদের আপ্যায়ণের কোন ত্রুটি থাকত না। শুনে ভরত মহারাজ বললেন, “যাত্ত এক্ষুনি প্রেসিডেন্ট মহারাজের সঙ্গে গিয়ে দেখা কর এবং আমাকে জানাও কাল সকালে কখন তুমি আমাদের নিতে আসবে”। আমি প্রেসিডেন্ট মহারাজকে আমাদের অসুবিধার কথা জানাতে তিনি বললেন, অন্য দিন স্থির করতে হলে আর হবে কিনা সন্দেহ , আর আমরা তোমাদের ঠাকুরবাড়ির ‘শ্রীশ্রীগোপীনাথ জীউকে’ দর্শন করতে যাচ্ছি, সম্ভবত এক বা দেড় ঘণ্টা তোমাদের বাড়ীতে থাকবো, কোন অসুবিধা হবেনা। এ কথা শুনে আমার মন পুলকিত হয়ে উঠল এই ভেবে যে এইসব মহাপুরুষ মহাত্মাদের পদধূলি আমাদের বাড়ীতে পড়বে, এ আমাদের পরম সৌভাগ্য। পরেরদিন সকাল ৯টায় গাড়ী নিয়ে মহারাজদের নিয়ে যাব বলে প্রনাম করে ও পূজনীয় ভরত মহারাজকে সে কথা জানিয়ে বেলুড় মঠ থেকে বেড়িয়ে পড়ি। আমার মা তখন লেকটাউনে থাকতেন, তাঁকে সেখান থেকে সঙ্গে নিয়ে মহারাজের জন্য কিছু কাঁসার বাসন, কাপড়, চাদর প্রভৃতি কিনে কোন্নগরের বাড়ীতে মাকে পৌঁছে দিয়ে, ঐ রাত্রেই রিষড়ার ফেলু মোদকের মিষ্টির দোকান থেকে ভালো মিষ্টির বায়না বাবদ কিছু টাকা দিয়ে যখন বাড়ী ফিরলাম, রাত তখন ১০টা।
পরের দিন বাড়িতে সকাল থেকে পূজনীয় মহারাজদের আপ্যায়নের প্রস্তুতি পর্ব শুরু হল। সকাল ৮ টায় সময় রিষড়ার ফেলু মোদকের দোকানে গিয়ে মিষ্টি কিনে এনে বাড়ীতে রাখি। আমি অ্যাম্বাসাডার গাড়িটি তাড়াতাড়ি চালিয়ে যখন বেলুড় মঠে পৌছালাম, তখন সকাল ঠিক ৯ টা। পূজনীয় স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজের বাসস্থান (গিরীশ মেমরিয়াল)- এর সামনে গাড়ি রেখে আমার আসার খবর ভেতরে জানালাম। পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজকে সঙ্গে নিয়ে স্বামী নাগেশ্বরানন্দজী (অরুণ মহারাজ) গাড়ির সামনে এলেন। আমি পেছনের দরজা খুলে দিলে পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ সীট-এ বসলেন। অরুণ মহারাজ সামনের সীট-এ বসলেন। আমি গাড়ি নিয়ে এসে স্বামীজির বাসস্থানের সামনে আম গাছের তলায় রাখলাম। সেখানে সেবক মন্টুবাবু পূজনীয় ভরত মহারাজকে নিয়ে এসে পিছনের সীট-এ বসলেন। পূজনীয় মহারাজদের সেবক দুজন সামনের সীট-এ আমার পাশে বসলেন। শ্রীশ্রী ঠাকুর, মা জগজ্জননী ও স্বামীজিকে স্মরন ও প্রণাম করে আমরা কোন্নগরের উদ্দেশে রওনা দিলাম। উত্তরপাড়া বাজারের সামনে ভিড় দেখে পূজনীয় ভরত মহারাজ আমাকে বললেন, মিত্তির একটু আসতে চালাও। আমরা কোন্নগরে যখন আমাদের ঠাকুরবাড়ির শ্রীশ্রীগোপীনাথ জীউর মন্দিরে পৌছালাম,তখন ১০ টা বেজে গেছে। বাড়ির মেয়েরা ও প্রতিবেশীনীরা শঙ্খধ্ব্নি করে পূজনীয় মহারাজদের সাদর অভ্যর্থনা জানালেন। গোটা বাড়ীতে মহারাজদের আগমনে যেন উৎসবের আবহ সৃষ্টি হল।
পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ ও পূজনীয় ভরত মহারাজ এবং সঙ্গে দুজন সেবক শ্রীশ্রীগোপীনাথ জীউ দর্শন করলেন। ঠাকুরবাড়ির সামনেই আমাদের বসত বাড়ি। আগেই বলেছি, এই বাড়িতেই আমাদের পূর্বপুরুষ শ্রীঠাকুরের গৃহী ভক্ত শ্রী নব চৈতন্য মিত্র থাকতেন। পূজনীয় মহারাজদের ওপরের ঘরে বসবার ব্যবস্থা হয়েছিল। তাঁদের নিয়ে ওপরে উঠবার সিঁড়ির কাছে এলাম। আমাদের বাড়ি ৩৫০ বছরের পুরনো। সিঁড়ি গুলি এতই সংকীর্ন যে দুজন পাশাপাশি একসঙ্গে উঠতে পারেনা। পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ ও ওনার সেবক অরুণ মহারাজ ওপরে উঠে গেলেন এবং ওনাদের দোতলার বড় ঘরে বসান হল। পূজনীয় ভরত মহারাজ বললেন, আমি এই ভারী শরীর নিয়ে এই সিঁড়ি দিয়ে উঠতে পারবনা। এই কথা শুনে তাঁকে আশ্বস্ত করবার জন্যে বাড়ির উল্টো দিকে নিয়ে গিয়ে দেখানো হল আর একটা চওড়া সিঁড়ি, যাতে রেলিং লাগানো আছে। পূজনীয় মহারাজ ঐ সিঁড়ির কাছে গিয়ে দেখে বললেন, কেন তোমরা আমাকে ওপরে নিয়ে যাবার জন্য বারবার বলছ? আমি নাটমন্দিরে গিয়ে বসব। তবুও কয়েকজন প্রতিবেশী ও ভক্তেরা তাঁকে অনুরোধ করলেন, তাঁকে চেয়ারে করে ওপরে নিয়ে যাবেন বলে। মহারাজ বললেন, আমি দোতলায় উঠবার কষ্ট না করে ভালভাবে নিচে বসব। মহারাজকে তার ইচ্ছামত নাটমন্দিরে চেয়ারে বসান হল। মণ্টুবাবু ও বাড়ির কয়েকজন এবং কিছু ভক্ত মহারাজের কাছে বসলেন। কিছুক্ষণ পরে হঠাৎই ইলেক্ট্রি্সিটি চলে যায়। পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজের যাতে কষ্ট না হয়, তাই হাওয়া বাতাসের জন্যে তাঁকে পূর্ব দিকের চওড়া বারান্দায় বসানো হল।
আমার মা বাড়ির একটি বাচ্চাকে দিয়ে মহারাজের গলায় রজনীগন্ধার গোড়ে মালা পরালেন। মা ওনাকে কাপড় ও চাদর দিয়ে প্রণাম করে মহারাজের পায়ের কাছে বসলেন। মহারাজজী সেসব সাদরে গ্রহণ করলেন। উনি মায়ের কাছে জানতে চাইলেন শ্রীশ্রীগোপিনাথ জীউ-র সেবা পূজা কি ভাবে হয়। মা ওনাকে জানালেন আমাদের তিন পরিবার মিলে পালা করে সেবা করা হয়। বিশেষ পূজা এক এক পরিবার এক এক বার করে করেন। দোল উৎসব, রাসপূর্ণিমা, দুর্গাষ্টমী, জন্মাষ্টমী, শিবরাত্রি এবং বছরে চারবার লক্ষ্মীপূজা হয়। এটা প্রতি পরিবারেই হয়। এই সব উৎসবের মধ্যে দোল উৎসব খুব বড় করে হয়। বিশেষ পূজা, হোম ও অন্নভোগ নিবেদন করা হয়। একসাথে প্রায় ৫০০ লোক বসে প্রসাদ পান। জন্মাষ্টমী ও শিবরাত্রির পূজো সব পরিবার মিলেমিশে একসাথে করে। এছাড়া দুর্গাষ্টমীতে শ্রীশ্রীগোপিনাথ জীউকে অন্নভোগ নিবেদন করা হয়। কুমারীপূজা হয় ও একজন ব্রাহ্মণ বিবাহিতা মহিলাকে নতুন কাপড় পরিয়ে একথালা মিষ্টি দেওয়া হয়। এটি আমাদের পরিবারের রীতি। সব শুনে প্রেসিডেন্ট মহারাজ বললেন, খুব ভালো। সবাই মিলেমিশে কাজ করা।
এভাবে আলাপ আলোচনার ভেতরেই পূজনীয় ভরত মহারাজ নীচে বসে আছেন বলে প্রেসিডেন্ট মহারাজও ওপর থেকে নীচে নেমে এলেন। সকল পূজ্য মহারাজদেরকে যথাযোগ্য আপ্যায়নের জন্যে আমাদের বাড়ির মহিলারা ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজের খুব ইচ্ছা পাশেই শ্রীঠাকুরের অন্যতম গৃহী ভক্ত শ্রী মনমোহন মিত্রের বাড়ি যান। সেই সময় বাড়ীটার অবস্থা ভগ্নাবশেষ মাত্র। তাও ঐ ঐতিহ্যশালী বাড়ির সামনে মহারাজকে নিয়ে গেলাম ও বাড়ীটা দেখিয়ে বললাম, বাড়ীটা ভগ্ণপ্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। এই অবস্থায় বাড়ীর ভেতরে ঢোকা সমীচীন নয়। শুনে মহারাজজী দূর থেকে দর্শন করলেন। প্রেসিডেন্ট মহারাজ ও ভরত মহারাজ নব চৈতন্যের (আমাদের) বাড়ির বাইরে বারান্দায় বসলেন। পূজনীয় মহারাজদের সরবত ও থালায় করে মিষ্টি পরিবেশন করা হল। পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ ওনাদের নিবেদিত মিষ্টির থালা থেকে উপস্থিত ভক্তদের প্রসাদ দিতে বললেন। আমার মা কাঁসার বাসন (থালা, বাটি ও গেলাস) ও প্রণামী মহারাজদের দিলেন। পূজনীয় ভরত মহারাজ আমাক জিজ্ঞাস করলেন, এই বসত বাড়ি এত পুরনো, কিভাবে দেখভাল কর? আমি বললাম মহারাজজী, বাড়ীতে আমরা (স্বামী-স্রী) দুজনে থাকি। তবে লোকজন আছে যারা পরিষ্কার রাখে। পুরনো বাড়ির যখন যেখানে সারাতে প্রয়োজন হয়, তার খরচ আমাকেই বইতে হয়। পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজকে বলেছিলাম, নাটমন্দির পূর্ব দিকে বাড়ানোর ইচ্ছে আছে। সেখানে শ্রীঠাকুর, শ্রীমা ও স্বামীজীর ছবি রেখে নিত্য আরাত্রিক এবং পঠন-পাঠন যাতে করা যায়, তার ব্যবস্থা করা হবে। আপনার আশীর্বাদ প্রার্থনা করছি। শুনে মহারাজজী বললেন যেটা প্রয়োজন সেটা করবে, অনর্থক খরচা করবেনা। একসময় পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ আমাকে বললেন মিত্তির, চল এবার মঠে ফিরতে হবে। পূজনীয় মহারাজ আমাদের বাড়িতে ও শ্রীশ্রীগোপিনাথ জীউ-র মন্দিরে প্রায় দেড় ঘন্টা সময় কাটিয়েছিলেন। গাড়ি চালিয়ে তাদের মঠে ফিরিয়ে দিয়ে এসেছিলাম। গাড়ি চালাবার সময় মহারাজদের সঙ্গে কথায় কথায় জানিয়েছিলাম যে, আমাদের আচারের কারখানার উৎপাদন যার সমস্তটাই বিদেশে রপ্তানি হয়।
প্রেসিডেন্ট মহারাজ বলতেন ‘রামকৃষ্ণ সঙ্ঘ শুধু সাধু – ব্রহ্মচারীদের নিয়ে নয়, সুধু দিক্ষিত ভক্তদের নিয়ে নয়, যারাই শ্রীরামকৃষ্ণ, শ্রীশ্রীমা ও স্বামিজীর ভাবাদশে বিশ্বাসী ও অনুরক্ত তাদের সকলকে নিয়ে এই রামকৃষ্ণ সঙ্ঘ এবং সেই বিরাট সমষ্টি হল প্রকৃত সঙ্ঘ শরীর।
আমরা বীজ মন্ত্রের সমন্ধে জিজ্ঞাসা করিলে বলতেন বীজমন্ত্রের মধ্যে নিহিত শান্তি এবং সাধকের সাধন শক্তি এই উভয় শক্তি মিলিত হয়ে পরিনামে সাধককে ঈশ্বর দর্শন করায়, জপকালে জাপক ইষ্ট চিন্তা ও করে। দুই একসঙ্গে চলে, কারন নাম ও নামী অভেদ। মন্ত্রের অর্থ চিন্তা মানেই মন্ত্রের উদ্দেশ্য দেবতার বা ইষ্টের চিন্তা। কারন মন্ত্র ইষ্টেরই প্রতীক, মন্ত্র ইষ্টই। এ জীবনেই ভগবান লাভ করব এ বিশ্বাস থাকা চাই। ব্যাক্তিগত প্রচেষ্টা ব্যাক্তিগত দৃড় সঙ্কল্প ছাড়া জীবনের উন্নতি সম্ভব হয় না। মাঝে মাঝে বলতেন সর্বপ্রকার ভোগের বাসনা তা ইহলোকে হোক বা পরলোকে হোক, স্বর্গে হোক বা যেখানে হোক বিচারের সাহায্যে ত্যাগ করতে হয়। এগুলি সাধু সঙ্গের দ্বারা সম্ভব। সাধুদের সংস্পর্শে এসে আমরা বুঝতে পারি যে তারা এক একটা অবস্থা প্রাপ্ত হয়েছেন যে অবস্থার সর্ব প্রকার দুঃখকে তারা জয় করেছেন, তাদের সেই মহান প্রাপ্তির দৃষ্টান্ত তাদের পদাঙ্ক অনুসরণ করার জন্য আমাদের অনুপ্রানিত করে। আমাদের উচিত সাধুদের ভালভাবে পর্যবেক্ষণ করা, তাদের ব্যাক্তিগত জীবন অনুধাবন করা এবং তাদের দৈনন্দিন জীবনচর্য্যা লক্ষ্য করা যাতে নিজেদের জীবনে আমরা সাধুদের দৃষ্টান্ত অনুসরণ করতে পারি। এছাড়াও আমাদের উচ্চ ভাবোদ্দীপক পুস্তকাবলী যেমন ভাগবত, রামায়ন, শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণ কথামৃত, শ্রীশ্রী মায়ের জীবনী ও স্বামীজীর রচনাবলী পাঠ করিতে হবে। মহাপুরুষদের বানী ভাল করে পড়তে হবে এবং সেগুলি স্মরণ মনন করতে হবে। যাহাতে নিজেদের জীবনে প্রতিফলিত হয় এবং তার জন্য সর্বদা সচেষ্ট থাকতে হবে।
১৯৮০ সালের তেইশে ডিশেম্বর হইতে উনত্রিশে হবে দ্বিতীয় সম্মেলন। এই সময় পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ ও পূজনীয় ভরত মহারাজের নির্দ্দেশে পচাত্তর পিস কম্বল ও পচিশ পিস মশারীর প্রয়োজন জানাইয়া বল্লেন তুমি যতটা পারবে আনিও। আমি সবটাই বড়বাজার হতে নিয়ে মঠে দিয়া আসি।
পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ আমাকে সদউপদেশ দিয়ে বলেন শ্রীশ্রী ঠাকুরের উপর অগাধ বিশ্বাস রেখে আপন কর্তব্য কর্ম করে যাও। ঠাকুরের প্রতি ঠিকঠাক বিশ্বাস হলে তিনি সকল বাধা প্রতিকুলতা দূর করেন। তবে নিজের চেষ্টা অবশ্যই থাকা চাই আর তার প্রতি চাই সত্যনিষ্ঠা। আমি তার একান্ত ইচ্ছা পূরণ করে নিজেকে ধন্য মনে করছি।
১৯৮৩ সালে প্রেসিডেন্ট মহারাজের গলদেশে ক্যান্সার রোগ ধরা পড়ে। রামকৃষ্ণ সেবা প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা এবং অস্ত্রপচার ও করা হয়। তিনি কিছুটা সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক কাজ কর্ম্ম শুরু করেন। বম্বেতে আশ্রমের হীরক জয়ন্তী উৎসব উদ্বোভণ করেন তেইশে ডিসেম্বর। সেখান থেকে তিরিশ তারিখে তিনি পুনের আশ্রমে আসেন। জানুয়ারীর প্রথমে বেলুর মঠে ফিরে আসেন। মঠের বাহিরে অন্য কোন আশ্রমের অনুষ্ঠানে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেল। নয়ই ফেব্রুয়ারী একশত পাচ জনকে দীক্ষা দান করেন।
এরপর পূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ একজন প্রবীণ মহারাজের নিকট তার বাঁচার অনীহা প্রকাশ করেন। সেবা প্রতিষ্ঠানের নামী চিকিৎসক ডাঃ নিরঞ্জন ব্যানার্জী কে বলেন আমার বয়স তিরানব্বই, আমি যে পুঁটলী বেধে বসে আছি আর হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে কি হবে? যা চিকিৎসা করার প্রয়োজন মনে কর তা এই মঠেই করো আমার আপত্তি নাই। এরপর দশই মার্চ দুপুর একটা সাথেরো মিনিট, বুধবার তিনি আমাদের সকলকে দুঃখ সাগরে নিমজ্জিত করে অমৃত লোকে যাত্রা করেন।
প্রেসিডেন্ট মহারাজের তিরধ্যানের পর আমার উপর ন্যস্ত হয় কিছু চন্দন কাঠ আনার জন্য যাহা বড়বাজার থেকে এনে দিই। ভান্ডারার দিন ওই গিরিশ মেমোরিয়াল বাড়ি ফুল দিয়া সাজানো এবং শয়ন খাট রজনীগন্ধা ফুল দিয়া সাজাবার সমস্ত কাজ শুষ্ঠ ভাবে করার সৌভাগ্যের স্মৃতি আমার জীবনে ধ্রুবতারার মত জ্বলজ্বল করে আজও দীপ্যমান।


Scared memories of Swami Avayananda Maharaj In English

Navachaitanya Mitra alias Navaichaitanya was the uncle of Manomohan Mitra of Konnagar, a house holder devotee of Lord Sree Ramakrishna deva. Sree Ramkrishna was very fond of the 'kirtana' of Navaichaitanya in his melodius voice. More than once the visited his house. He had been blessed by Thakur in the religious festival of Panihati and from then onwards spent his life in devotion in a thatched house by the river Ganges. Even after the demise of Thakur, His desciples would often pay visits to Konnagar to see the great devotee Navai Chaitanya and to pay tribute to their tutelary deity Lord Gopinath Jeu. The relation of Ramakrishna Math became very hearty with this family day by day. This is an intimate memoirs of Sree Amarendra Nath Mitra, the desecendant of Mitra family with of the devoted company of respected Swami Abhayanandaji Maharaj, the Senior Sanyasi of Ramkrishna order.
My acquintance with Belur math starts towards the end of the month of December, 1950. My father took me to our factory for manufacturing Mango. Chatney at Maniktala after my Matriculation examination was over and there on to Yogodwan Math in Kankurgachi. He introduced me with the saint Hari Maharaj, son of Manomohan Mitra and told him, 'I took him here so that he might have a contact with you. Please take care of him.' I superbised the factory at Maniktala for long twelve years till an expanded workshop opened at Konnagar in 1962. I had the practice then to visit Belurmath regularly and pay my tribute to all the temples and then offened my pranam to respected President Maharaj (Swami Sree Vireswaranandaji Maharaj) and respected Abhayanandaji Maharaj (Bharat Maharaj) before returning home.
Originally Bharat Mahraj was the resident of Dhaka. His name had been Atul Guha. A gymnasium cum hostel was situated there near his home. A group of desparate youth devoted with patriotism got some training of wrestling, fighting with sticks, fencing, travelling, with long sticks and even making bombs confidentially. Atul was only 14 or 15 years of age then. He left home and joined that 'Anushilan Samity'. He had been acclaimed very shortly for his sincerely and ability. India was restless then with the movement of the partition of Bengal. Desparate youth of Bengal were in Struggle against the fire arms of the British administration. atul too joined that. The secret report of the then Police Commissioner Charles Teggart that had been sent to British Government in 1924 included the name of Atul too. But he was not at one with some rules of Anushilan Samity. He urgently felt the advice of respected Swami Brahmananda was needed in this matter. He informed that to the local advisor Sri Biren Basu and they went from Dhaka to Belurmath at the earliest opportunity.
It had been selted after the discussion with Swami Brahmandaji that they would stay two days in the math before returning to Dhaka. But Birenbabu had to return earlier for urgent business. Swami Brahmanandaji told Atul that food should not be taken there without rendering any serbice to the math. So Atul was engaged to minor works as directed by Swami Premanandaji. Swami Brahmanandaji discussed the ideals and programmes of the revolutionary party while walking in the afternoon by the river Ganges. He requested Atul to come again on the occasion of Swamiji's birthday. Atul yet again went there on the occasion of birthday celebration of Shri Ramakrishna dev and did not return to Dhaka again. Swami Premanandaji arranged the consecration of Atul in 1912 by Shri Shri Ma. It was a memorable incident. The consecration was scheduled for another person whose charge had been given to Atul to bring him after bathing in the river Ganges to respected Sharat Maharaj in the house of Sree Ma. He advised Atul to request Sharat maharaj to ask the Mother for his own initiation. Atul had been initiated that day.
Shashi Maharaj was severely sick once and Atul rendered great sevice to him to become very fond of him. Sharat Maharaj too was very affectionate to him. There was another 'Atul' in the math by name, so Swami Shivanandaji called him 'Bharat' and the other one 'Shatrughna'. That is the mystery why Abhayanandaji had been known as Bharat Maharaj. Bharat Maharaj was a man of personality. He was very serious and reserbed. None would dare go to him but he was very soft at heart. I very much liked his company. Common men as well as some V.I.Ps would come to him like the then Prime Minister of India Mrs Indira Gandhi. Bharat Maharaj had several times been selected President of Ramakrishna Math and Mission temporarily but he never had he been selected President or Vice-President permanently. Still important personalities, when came to the math, had discussions with him in different subjects.
I used to go to math to have company of Bharat Maharaj two or three days in a week in the afternoon after the workshop at Konnagar was closed. If by chance I missed to go there any week, Bharat Maharaj enquired about me. He had abnormal foresightness. I used to go in the morning in sundays only and in the days of festivals of course. Many dignitaries would come on the festive days like Ashok Sarkar, A. N. Roy, Vikashkali Basu, Amal Dutta (Government Officer) etc. Maharaj allotted my duty to serbe them 'prasada'. A rich gentleman settled in Mumbay used to come to math a few months alternately and stayed at the guest-house. He silently spent hours in the room of respected bharat Maharaj. Later I came to know that he was a Muslim merchant and a great devotee of Thakur. Sister Gargi (Manny Louis Burk) would come every year for a few days from Sanfransisco and rested at the guest-house of Belurmath. She discussed various aspects with Maharaj in his room. It was heard that respected Ashokanandaji maharaj had advised her to come in contact with respected Bharat Maharaj as Maharaj was blessed by Sri Ma and served Her.
I came nearer to Bharat Maharaj by these frequent visits. I visited him with the mangoes acquired from Malda. He took keen interest in them. He sent ripen mangoes in the temple and green mangoes went to the stock-room. I made many a times pickles with them by the requisite spices and acid to Murari Maharaj or Sunil Maharaj. Respected Bharat Maharaj once told me on the eve of the youth festival, "You have to donate some blankets. Requisition is vast must you give me as many as you can. Consult President Maharaj about this." I consulted President Maharaj and agreed to supply seventy five pieces of lankets. I bought seventy five pieces of blankets as agreed and took 50 of them to him when he told me solemnly, 'My calculation was wrong Mr. Mitra, don't purchase further blankets and bring me twenty five mosquito-nets in lien of them. I knew that the blankets already purchased would not be returned back. But that was no problem. I took twenty five pieces of those blankets along with twenty five pieces of mosquito-nets to him. He was very pleased with me but repented for the extra amount I had to spend for that. So sincere was his dealings I could not express in language. I informed everything to President Maharaj and he told me, 'We always bother for you.'
Our factory had been closes for about three months in 1969 due to political disturbance. I informed the matter to Bharat Maharaj and it was only his earnest blessing that we could open our new factory in Ghusuri after two months and we are in a position to export mango-pickles to foreign conntries according to their orders within three months. I requested respected Swami Vireswaranandaji and Bharat Maharaj to visit the temple of Gopinath Jeu at Konnagar. Bharat Maharaj gave his consent but told that the programme would be fixed by the math. I had to wait three years for them and succeeded at last to bring them there in my own car. Arun Maharaj and Mantubabu accompanied them. The memory is kept in the core of my heart. The courtyeard of the temple was required to be extended for worship and celebration in special days and I duty informed them of that. Finally we were able to do that by birtue of their blessing and consent. Respected President Maharaj expressed his willingness to visit the house of Manomohan Mitra near by. Though that was a ruined building that time, Thakur had bisited the house which made it a pilgrimage. President Maharaj paid tribute to Lord Gopinath Jeu and took rest in our room in the first floor. Bharat Maharaj did not benture to go upstairs due to his heavy body and rested on the countyeard of the temple. They spent there one and half hour at nobai chaitanna house and returned back in my car.
One day at noon, I found one Ramnarayan Chakrabarty waiting for me. My daughter Nupur used to teach him. The boy passed Madhyamik Successfully with letter in Mathematics. He lost his father at an early age and continued his studies with the help of the husband of his sister. He came to me for help whe that man had been transferred to some other place. I took the boy to Swami Smaranandaji Maharaj, Secretary, Saradapitha. He thought first that I wanted the boy to be admitted in Vidyamandir and so told me he was sorry for the admission is closed there. I told him that I wanted the boy to sit for the admission test in Rahara Ramakrishna Mission and I hegged him to write a letter for that. He readily handed me a letter in his pad which I placed to Bharat Maharaj. He requested me to wait some time. Sadhus came to pay tribute to him in the afternoon. He asked Smaranandaji if he could recognize me. He nodded in affirmation and told everything we discussed. Bharat Maharaj kept mum when he was told that admission was not possible. Then he called Mantubabu on to his office asked to contact secretary Maharaj of Narendrapur over phone. The contact was made at last but Secretary Maharaj was not available. So he told the Head master Hari Maharaj, 'I am sending Mr. Mitra of Konnagar to Secretary Maharaj with a request to admit a boy in his school. See that it is done.' But when I went to Narendrapur I had the same answer from the secretary that the admission was closed and the classes too started and no new admission was possible.
I was completely broken-hearted then. It was already 12 O-clock. I did not go to Belurmath and returned to Konnagar. After the factory hours I went to math. Mantubabu was eagerly waiting for me and told me, 'What's up to you? Maharaj had told you to go to Narendrapur in the morning but no news came from you till now! Maharaj had asked six or seven times anxiously to know what had happened to you! He called me to know the details many a times.' I said, 'Maharaj, my mind was so sick that I did not inform you. It was late too. The boy could not be admitted to Narendrapur. He said, 'Did you think of me? I was so anxious that I asked Mantu time and again what had happend there. You paid no value to my anxicts!' I could not hold tears then. There was not a pinch of salt to that hearty affection. Maharaj told me later, 'Rahara is a troubled school. I had no intention to send you there.' Still he asked Mantubabu to contact the secretary Maharaj of Rahara. But God forbid, the line was not available. Maharaj said, 'You go and ask Maharaj of Rahara to contact me over phone anyhow.' I returned home at 8 pm. But soon after I received a phone call of Maharaj, 'Don't go to Rahara. Come to Vidyamandir tomorrow, see the Principal Maharaj and get the boy admitted there. I had talked with him.'
When I went to Vidyamandir the next day, Principal Maharaj handed me requisite forms and papers, told me to fill up those and to come next Friday for admission. When infomed of that, Revered Bharat Maharaj lamented, 'Still belated upto Friday! Make it a point to inform me when the boy gets admitted.' The boy did get the admission and when I informed that to Revered Bharat Maharaj he breathed a sigh of relief and told me, 'Ok, I am happy.' Tears burst out of my eyes in gratitude that sincere affection and hearty love could not be measured with anything. In summer days Revered Bharat Maharaj would sit on a chair under a mango tree with two benches on both side. Devotees came to see him would sit there. I asked him manythings when I found him alone such as how was the first stage of his life here, how the math did run those days, whose company impressed him much etc. He did never showed any interest for his past life, but I was not to let in. My repeated cndeavour through years yilded results. He told me oneday. 'In my early days in the math, I spent a few years in Mayabati Ashram. Then I came to serve Raja Maharaja of Bhubaneshwar math. But strangely enough, I had never been present in Rathayatra in Puri. Maharaj, on request, once permitted me to go to enjoy the festival. But a letter came from Belurmath twelve days before the chariot festival which made the Maharaj miserably sad. He told me, 'Bharat, you have to go to Belur.'
But you gave the permission sir, to attend Rathayatra in Puri'---I said hesitatingly, 'could I not stay have for a few more days?''Oh, who will be in the service of the Mother then!' said Maharaj, Revered'Sarat Maharaj is in charge of the service of the Mother, but he will be on a tour. You'll get a Chance to enjoy Rathayatra ceremony another time. Now please purchase a ticket and start tomorrow for Belur. Ask the cook so that your food is ready before journey. 'He further cautioned me not to stay at Belur more than two days so that I might join the Mother at Baghbazar for Her service. Maharaj was attendent then. How dup was his respect and love for the Mother. I never got a chance to attend Rathayatra in Puri in future.
The statue of Thakur was to be set up in the temple of Kanakhal. Many saints were on their way from Belur and other places. Devotees were coming cnblock to get letter of permission to attend the celebration. When I rendered my praname on the eve of their journey to revered President Maharaj and Bharat Maharaj, Bharat Maharaj asked me, 'Are you not going to Kankhal?' 'You have not asked me Maharaj to go'--I replied, 'I visit you three or four days here, if you asked me to go I would surely be going.' 'What a pity! You like to go there but you never let me know that?' 'I am waiting for your order sir.' 'But its already late. How could you manage tickets now?' 'I'll see you at Kankhal. All you have to do is to arrange a lodging for us.' 'I'll reach Kankhal day after tomorrow with President Maharaj by plane from Dumdum. You see me there and lodging would be no problem.'
I came straight to Howrah station from the math and purchased two tickets of Rajdhani Express as tickets in Deradoon Express was not available. I started for Delhi the next day. I reached Hardwar in the afternoon and went to Kankhal to see Maharaj. He was so pleased to have me and said, 'It's very good that you have come here.' Our lodging had been arranged. The festival continued for three days.Revered Bharat Maharaj told me on the fourth day. 'We shall start on 'Panchami and go to Vrindaban via Delhi.' I informed him my trouble and said, 'I could not manage tickets for Howrah. I tried in all stations namely Hardwar, Hrishikesh and Dehradoon. I'll be in trouble if you can't manage it.' Maharaj said to Mantubabu, 'Telephone Mr. S. K. Biswas, Divisional Commissioner, Gahrwal. Tell him to see me today.' When he came to see Maharaj in the evening, he told him, 'We are departing tomorrow morning, but you have to arrange for two tickets of Howrah. President Maharaj and Bharat Maharaj departed the next day . As the morning was our, I enquired to Kanta Maharaj, the manager of the Ashram if some Mr. Biswas had sent him two tickets of Howrah. He said, 'No. None gave me any ticket.' I did not find Secretary Maharaj, so once again I had to try for tickets in Deradoon, Hrishikesh and Hardwar, but I failed. Returning to Ashram I found no one came with the tickets.
All the Maharaj's scheduled to return to Howrah that day set out for the station. Virtually I found Secretary Maharaj there and enquired if Mr. Biswas gave him two tickets for Howrah. He picked out two tickets from his pocket and told me, 'Excuse me, I had forgotten it. But still some time left. Go and catch the train.' I reached the station forty minutes before the departure of the train. When I found my reserbed seat, I was overwhelmed to see the entire coach was full with old saints. I returned gracefully with such a devotinal company. It was my good luck that I had some intimacy with Aptakamanandaji Maharaj on that tour. He was the principal of Kontai math. He asked me to go the next day to 'Udbodhan' and when I went there he introduced me with respected principal Niramayanandaji. Later Bharat Maharaj wanted to know from me if I faced any trouble returning to Howrah. I told him how happy I had been with the company of pions sadhus on that trip. It had been possible only for his blessings.
Expo 70 International Exhibition was held in 1970 at Osaka in Japan. I had been in Japan for fifteen days. I gave vivid description of everything to him when I returned and he was a keen listner. I used to tour foreign countries two times a year from 1982 to 1988 to expand my business. My ltinerary before I left was examined by Respected Bharat Maharaj and told me, 'How do you manage such a hurricane-tour everytime!' Sometimes he exclained like this, 'Beware of your heatlh. But you are certainly very happy to get orders in this way!' Respected Bharat Maharaj blessed me and told that this sincere effort and love for the business would make its progress day by day.'
I faced a dengerous accident in 1977. A lorry pasted me on the case of a matador van and I sustained seven stitches in my head and several in legs. I had been brought to the hospital by my driver but I eigned a bond and returned home. Bharat Maharaj, when informed of that, advised me to consult a good doctor. When he heard of my profuse bleding he advised me to take Checken-stew. When told that chicken was forbidden in the house, he informed that essence of chicken was available in ampules. He advised me to take that. He inquired about me over phone seva Pratisthan followed by a massive heart-attack in September, 1989. I had to stay there fifty day. Revered Bharat Maharaj too was hospitalized then and kept in the cabin beside me. A advised by the doctor, I used to walk in the front varanda and enquired about the health of Maharaj. Respected Gahanandaji Maharaj, respected Atmasthanandaji Maharaj, respected Prabhanandaji Maharaj etc. used to come to see him The extered my cabin too and enquired about my health. Maharaj had been released after fifteen days but I had to remain there another five days. Revered Bharat Maharaj enquired of my health after I returned home. I never failed to render my tribute to Maharaj so long as he lived there and the last few days he had been admitted to Seva Pratisthan. He breathed his last in Seva Pratisthan in 17 November, 1989. His sincere love, heartiest affection, his pleasing personality and moreover the immemorable incidents of his life will remain deep in my heart till the last days of my life.



স্মৃতির আলোয় স্বামী অভয়ানন্দজী মহারাজ

[শ্রীরামকৃষ্ণের গৃহী ভক্ত কোন্নগরের মনোমোহন মিত্রের জ্যাঠামশাই ছিলেন নবচৈতন্য মিত্র বা ‘নবাইচৈতন্য’। তাঁর সুরেলা কণ্ঠের ভক্তিপূর্ণ সংকীর্তন শ্রীরামকৃষ্ণের অতি প্রিয় ছিল। একাধিকবার শ্রীশ্রীঠাকুর তাঁর গৃহে পদার্পণ করেছিলেন। পানিহাটির উৎসবে তিনি শ্রীরামকৃষ্ণের বিশেষ কৃপালাভ করেন এবং তারপর থেকে গঙ্গাতীরে পর্ণকুটিরে বাস করে সাধনা করতে থাকেন। ঠাকুরের দেহাবসানের পরও বরানগর মঠ থেকে গুরুভাইরা কোন্নগরে যেতেন সাধক নবাইচইতন্নকে দেখতে এবং তাঁদের কুলদেবতা শ্রীশ্রীগোপীনাথ জিউকে দর্শন করতে। তখন থেকেই তাঁর পরিবারের সঙ্গে রামকৃষ্ণ মঠের সম্পর্ক অতি ঘনিষ্ঠ। তাঁর বংশধর শ্রীঅমরেন্দ্রনাথ মিত্র রামকৃষ্ণ সঙ্ঘের বরিষ্ঠ সন্ন্যাসী পূজনীয় স্বামী অভয়ানন্দজী মহারাজের স্নেহসান্নিধের অন্তরঙ্গ স্মৃতিচারণ করেছেন এই প্রবন্ধে।–সঃ] বেলুড় মঠের সঙ্গে আমার যোগাযোগ ১৯৫০ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষের দিক থেকে। ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষার পর বাবা আমাকে কলকাতার মানিকতলায় আমাদের চাটনি কারখানায় নিয়ে গিয়ে যাবতীয় কাজ দেখানোর পর নিয়ে গেলেন কাঁকুড়গাছি যোগোদ্যান মঠে। সেখানে গিয়ে মনোমোহন মিত্রের পুত্র ব্রহ্মচারী হরি মহারাজের সঙ্গে আমার পরিচয় করিয়ে দিয়ে তাঁকে বললেন, “তোমার সঙ্গে আলাপ করিয়ে দিলাম যাতে তোমার সাথে যোগাযোগ রাখতে পারে। ও এখানে আসবে, ওকে একটু দেখো।” মানিকতলা কারখানায় আমি প্রায় বারো বছর ছিলাম। তারপর কোন্নগরে বড়ো করে কারখানা হয়। ১৯৬২-তে কারখানা চালু হবার পর আমি কোন্নগরে চলে আসি। তখন থেকেই বেলুড় মঠে গিয়ে সব মন্দিরে প্রণাম করার পর পরমপূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ (শ্রীমৎ স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজ) ও পূজনীয় অভয়ানন্দজী মহারাজকে (ভরত মহারাজ) প্রণাম করে বাড়ি ফিরতাম। পূজনীয় ভরত মহারাজের পূর্বাশ্রম ছিল ঢাকায়। তাঁর নাম ছিল অতুল গুহ। ঢাকায় তাঁর বাড়ির কাছে একটি আখড়ায় হস্টেলের মতো জায়গা ছিল। ঘরছাড়া দামাল ছেলেরা সেখানে দেশপ্রেমের বীজমন্ত্রে দীক্ষিত হত। সেখানে কুস্তি, লাঠিখেলা, অসিচালনা, রণপা চড়া ইত্যাদি ছাড়াও অতীব গোপনে বোমা তৈরি শেখানো হত। অতুল তখন চোদ্দো-পনেরো বছরের কিশোর। বাড়ি থেকে পালিয়ে যোগদান করলেন অনুশীলন সমিতি’তে। অতি অল্পদিনের মধ্যেই দক্ষতা ও নিষ্ঠায় সবার প্রশংসা অর্জন করেছিলেন। তখন বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনে সারা ভারতবর্ষ উত্তাল। বাংলা মায়ের দামাল ছেলের দল ইংরেজের বেয়নেট, গুলি উপেক্ষা করে দলে দলে ঝাঁপিয়ে পড়েছে আন্দোলনে। অতুলও যোগ দিলেন সেই কর্মযজ্ঞে। ১৯২৪ সেই তৎকালীন পুলিশ কমিশনার চার্লস টেগার্ট বিপ্লবীদের যে গোপন রিপোর্ট ব্রিটিশ সরকারের কাছে পেশ করেছিলেন তাতে তাঁরও নাম ছিল। অনুশীলন সমিতির কিছু নীতি অতুল মন থেকে মেনে নিতে পারছিলেন না। তাঁর বারবার মনে হচ্ছিল এব্যাপার পূজনীয় স্বামী ব্রাহ্মানন্দের পরামর্শ প্রয়োজন। সেকথা তিনি স্থানীয় পরামর্শদাতা বীরেন বসুকে জানান এবং সুযোগমতো দুজনে ঢাকা থেকে সরাসরি বেলুর মঠে আসেন।

স্বামী ব্রহ্মনন্দজীর সঙ্গে কথা বলার পর ঠিক হয় দুদিন মঠে থেকে দুজনে ঢাকায় ফিরবেন। বিরেনবাবুর কলকাতায় বিশেষ কাজ থাকায় মঠে না এসেই ঢাকা ফিরে যান। এদিকে স্বামী ব্রহ্মানন্দজী অতুলকে বলেন, কিছু কাজ না করে মঠের অন্নগ্রহন করা উচিত নয়। তাই স্বামি প্রেমানন্দজীর নির্দেশমতো অতুল কিছু কিছু কাজ করতে থাকেন। বিকেলে গঙ্গার ধারে পাদচারণা করতে করতে তাঁর সঙ্গে স্বামী ব্রহ্মানন্দজী বিপ্লবী দলের নীতি ও কর্মকাণ্ড সম্পর্কে আলোচনা করতেন। তিনি প্রথমে অতুলকে স্বামীজীর আসন্ন জন্মতিথি দেখে যেতে বলেন, আবার স্বামীজীর জন্মতিথি কাটলে শ্রীরামকৃষ্ণের জন্মতিথি উৎসব কাটিয়ে যেতে বলেন। এরপর অতুলের আর ঢাকা ফিরে যাওয়া হয়নি। ১৯১২-তে শ্রীশ্রীমার কাছে অতুলের দীক্ষা হয় স্বামী প্রেমানন্দজীর ব্যাবস্থাপনায়। ঘটনাটি অপূর্ব! এক ভদ্রলোকের দীক্ষার দিন প্রেমানন্দজী তাঁকে গঙ্গাস্নান করিয়ে উদ্বোধনে মায়ের বাড়িতে শরৎ মহারাজের কাছে পৌঁছে দেবার দায়িত্ব দিয়েছিলেন অতুলকে। তিনি অতুলকে পরামর্শ দেন সেই ভদ্রলকের সঙ্গেই গঙ্গাস্নান করে মায়ের কাছে দীক্ষার জন্য শরৎ মহারাজকে বলতে। অতুলের সেদিন এভাবে দীক্ষা হয়েছিল। শশী মহারাজের অসুস্থতাকালে অতুল আপ্রাণ সেবা করেন এবং তাঁর কৃপালাভ করেন। শরৎ মহারাজেরও তিনি স্নেহের পাত্র ছিলেন। মঠে দুজনের নাম ‘অতুল’ থাকায় স্বামী শিবানন্দজী তাঁকে ‘ভরত’ এবং অন্যজনকে ‘শত্রুঘ্ন’ বলে ডাকতেন। তাই অভয়ানন্দজী ‘ভরত মহারাজ’ নামেই পরিচিত। ভরত মহারাজ খুব ব্যক্তিত্বসম্পন্ন এবং রাশভারী ছিলেন, অত্যন্ত কম কথা বলতেন। তাঁর ব্যক্তিত্বের জন্য ভয়ে তাঁর কাছে সহজে কেউ যেতে সাহস করতেন না, অথচ তিনি ছিলেন কুসুমের মতো কোমল। আমার কিন্তু তাঁর সঙ্গ খুব ভালো লাগত। কয়েকজন সাধারন মানুষ ও বিশিষ্ট কিছু মানুষ তাঁর কাছে আসতেন, তাঁদের মধ্যে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীর নাম উল্লেখযোগ্য। ভরত মহারাজ দু-এক বার অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট হলেও স্থায়িভাবে রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশনের প্রেসিডেন্ট বা ভাইস প্রেসিডেন্ট কখনও হননি, তবু বিশিষ্ট ব্যক্তিরা মঠে এসে তাঁর সঙ্গেই বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করতেন। বিকেলে কারখানা বন্ধের পর কোন্নগর থেকে সপ্তাহে দু-তিনদিন মঠে যেতাম এবং ভরত মহারাজের সঙ্গ করতাম। কোনও সপ্তাহে কাজের চাপে দু-এক দিন না গেলে খোঁজ করতেন। অসম্ভব দূরদৃষ্টি ছিল তাঁর। প্রতি রবিবার সকালে যেতাম এবং বিশেষ বিশেষ উৎসব-অনুষ্ঠানের দিন অবশ্যই যেতাম। সেসব দিনে বহু বিশিষ্ট ব্যক্তি যেমন অশোক সরকার, এ এন রায়, বিকাশকলি বসু, অমল দত্ত প্রমুখ মঠে যেতেন। মহারাজ আমাকে দায়িত্ব দিতেন ওঁদের প্রসাদ খাইয়ে আনার। একজন বোম্বাইবাসী ধনী ভদ্রলোক দু-চার মাস অন্তর মঠে এসে অথিতিনিবাসে থাকতেন ও মহারাজের ঘরে চুপ করে বসে থাকতেন দেখতাম। পরে জানতে পারি তিনি মুসলমান, বড়ো ব্যবসায়ী ও ঠাকুরের খুব ভক্ত। সিস্টার গার্গী ( মেরি লুইস বার্ক ) প্রতি বছর কিছুদিনের জন্যে সানফ্রান্সিসকো থেকে এসে বেলুড় মঠের অথিতিনিবাসে থাকতেন এবং প্রতিদিন মহারাজের ঘরে বহুক্ষণ ধরে নানা প্রসঙ্গ করতেন। শুনেছিলাম পূজনীয় অশোকানন্দজী মহারাজ তাঁকে বলেছিলেন, “বেলুড় মঠে গিয়ে ভরত মহারাজের কাছে যাবে-তিনি শ্রীশ্রীমায়ের কৃপাপ্রাপ্ত এবং তাঁর সেবা করেছিলেন”। ঘন ঘন যাতায়াত ও সঙ্গ করার ফলে আমি ভরত মহারাজের কাছের মানুষ হয়ে পরেছিলাম। মালদা থেকে আম এলে তা নিয়ে জেতাম। মহারাজকে বললেই তিনি উৎসুক হয়ে দেখতেন। আম পাকা হলে মান্দিরে পাঠিয়ে দিতেন, কাঁচা হলে ভাণ্ডারীকে ডেকে সেগুলি নিয়ে যেতে বলতেন। ওই কাঁচা আম দিয়ে বহুবার মুরারি মহারাজ বা সুনীল মহারাজের কাছ থেকে তেলমশলা ও অ্যাসিড জোগাড় করে আচার তৈরি করে দিয়াছি। যুবসম্মেলন হবে, মহারাজ আমাকে বললেন, “মিত্তির, তোমাকে কিছু কম্বল দিতে হবে। প্রয়োজনে অনেক কিছু তুমি যা পারবে তাই দেবে। একবার প্রেসিডেন্ট মহারাজের সঙ্গে পরামর্শ করে নিয়ো”। আমি প্রেসিডেন্ট মহারাজের সঙ্গে কথা বলে তাঁকে জানিয়াছিলাম, পঁচাত্তরটি কম্বল দেব। পঁচাত্তর পিস কম্বল কিনে তা থেকে পঞ্চাশ পিচ নিয়ে গিয়ে দিতেই বললেন, “মিত্তির, আমার ভুল হয়েছিল। তুমি ওই পঁচিশ পিস আর না এনে বদলে পঁচিশ পিস মশারি আনতে পারলে ভালো হয়”। আমি জানতাম পঁচিশ পিস হবে না। পরে ওই পঁচিশ পিস মশারি এবং বাকি পঁচিশ পিস কম্বল নিয়ে গেলে খুব আনন্দ করলেন আর বললেন, “মিত্তির তোমার কিছু বেশি খরচ করে দিলাম”। সেকথায় এত স্নেহ ও মাধুর্য ছিল যা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। প্রেসিডেন্ট মহারাজকে জানাতে তিনি বলেন, “তোমাদের জন্য আমাদের চিন্তা তো থাকে”। ১৯৬৯ সালে রাজনৈতিক গণ্ডগোলে প্রায় তিনমাস আমাদের কারখানা বন্ধ থাকে। ভরত মহারাজকে সব জানালাম। তাঁর আশীর্বাদ নিয়ে অনেক খোঁজাখুঁজির পর ঘুসুড়িতে দুমাসের মধ্যে নতুন কারখানা খোলা সম্ভব হয় এবং তিনমাসের মধ্যে নতুন লোক নিয়ে চাটনি তৈরি করে দুটি বিদেশি অর্ডারের চাটনি সময়মতো পাঠাতে পারে। শ্রীমৎ স্বামী বীরেশ্বরানন্দজী মহারাজ ও ভরত মহারাজকে কন্নোগর গোপীনাথ জিউর মন্দিরে যাওয়ার অনুরোধ করলে ভরত মহারাজ বলেন-ইচ্ছা রইল, তবে মঠের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যেদিন স্থির হবে সেদিনই যাওয়া হবে। সেইমতো প্রায় তিন বছর পর একদিন আমি গাড়ি চালিয়ে তাঁদের কোন্নগরে নিয়ে আসি। সঙ্গে ছিলেন অরুণ মহারাজ আর মন্টুবাবু। সে সুখস্মৃতি আজও মনের মণিকোঠায় সযত্নে ধরে রেখেছি। মহারাজদের জানিয়েছিলাম যে মন্দিরের অঙ্গনটি প্রশস্ততর করা প্রয়োজন কারণ আরতি, পাঠ ও বিশেষ পূজার দিন স্থান সংকুলান হয় না। তাঁদের আশীর্বাদ ও সম্মতি পেয়ে পরবর্তী কালে তা করতে পেরেছি। পরমপূজনীয় প্রেসিডেন্ট মহারাজ পাশেই মনোমোহন মিত্রের বাড়ি যেতে চাইলে আমি সেই পরিত্যক্ত ভাঙা বাড়িটি দেখাই। শ্রীশ্রীঠাকুর সেই বাড়ির ওপরের ঘরে গিয়েছিলেন বলে মহারাজের ইচ্ছে হয়েছিল ওপরে যেতে। গোপীনাথ দর্শনের পর প্রেসিডেন্ট মহারাজ আমাদের দোতলা ঘরে বিশ্রামের জন্য বসেন। কিন্তু ভরত মহারাজ বললেন, ভারী শরীর নিয়ে তিনি আর ওপরে উঠবেন না। মন্দির প্রাঙ্গণেই তিনি বসেছিলেন। প্রায় দের ঘণ্টা পর তাঁরা আমার গাড়িতেই মঠে ফেরেন। এক রবিবার মঠে দুপুরে প্রসাদ পাওয়ার সময় দেখি রামনারায়ণ চক্রবর্তী বলে একটি ছেলে আমার জন্য অপেক্ষা করছে। সে আমার মেয়ে নূপুরের কাছে পরতে আসত। পিতৃহীন ছেলেটি মাধ্যমিকে অঙ্কে লেটার পেয়ে ভালভাবে পাশ করেছিল। সে তার জামাইবাবুর কাছে থেকে পড়াশুনা চালাত। তিনি বদলি হয়ে যাওয়ায় সে আমার কাছে এল, থাকা-খওয়ার কোনও ব্যাবস্থা যদি করে দিতে পারি এই আশায়। আমি তাঁকে বিকেলে নিয়ে যাই সারদাপীঠের সম্পাদক স্বামী স্মরণানন্দজী মহারাজের কাছে। তিনি ভেবেছিলেন আমি তাঁকে বিদ্যামন্দিরে ভর্তি করাতে চাই, তাই বললেন-ভর্তি শেষ হয়ে ক্লাস শুরু হয়ে গেছে, উপায় নেই। জানালাম যে আমি ভর্তি করাতে আসিনি, তাকে রহরা রামকৃষ্ণ মিশনে ভর্তির পরীক্ষায় যাতে বসাতে পারি সেজন্য তিনি যেন একটি চিঠি লিখে দেন। তিনি তাঁর প্যাডে চিঠি লিখে দিলে আমি ভরত মহারাজের কাছে গিয়ে সব জানাই। মহারাজ বললেন, “তুমি অপেক্ষা করো।” বিকেলে সাধু-ব্রহ্মচারীরা তাকে প্রণাম করতে এলেন। স্মরণানন্দজী প্রণাম করতেই মহারাজ জিজ্ঞেস করলেন, “তুমি মিত্তিরকে চেন?” তিনি ইতিবাচক উত্তর দিয়ে জানালেন সেদিন আমাদের কী কথা হয়েছিল। ভর্তির উপায় নেই শুনে ভরত মহারাজ চুপকরে রইলেন। তারপর প্রায় সাতটার সময় মন্টুবাবুকে ডেকে নরেন্দ্রপুরের সেক্রেটারি মহারাজকে ফোনে ধরে দিতে বললেন। অনেক চেষ্টায় লাইন পাওয়া গেল, সেক্রেটারি মহারাজ না থাকায় হেডমাস্টার হরি মহারাজকে ভরত মহারাজ বলে দিলেন, “তুমি সেক্রেটারি মহারাজকে বলবে-আমি কোন্নগরের মিত্তিরকে পাঠাচ্ছি। কাল সকালে একটি ছেলেকে নিয়ে সে যাবে। তাকে যেন ভর্তি করে নেয়”। পরদিন নরেন্দ্রপুরে গিয়ে একটি কথা শুনি-ভর্তি শেষ ও ক্লাস শুরু হয়া গেছে-অতএব নতুন ভর্তি হবেনা। মন খুব খারাপ হয়ে গেল। তখন বেলা প্রায় এগারোটা। তাই আর বেলুড় মঠে না গিয়ে কোন্নগর ফিরে এলাম। পরে বিকেলে কারখানা থেকে ফিরে মঠে যাই। মণ্টূবাবুর সঙ্গে দেখা হতেই তিনি বললেন, “কী ব্যাপার অমরেন্দ্রবাবু? আপনাকে সকালে নরেন্দ্রপুরে যেতে বলেছিলেন মহারাজ ছ-সাতবার জিজ্ঞাসা করলেন-কই মিত্তির কোনও খবর দিল না, কী ব্যাপার?” আমি ঘরে গিয়ে মহারাজকে প্রণাম করতেই তিনি বললেন, “কী হল, তুমি কোনও খবর দিলে না? আমি বারবার মণ্টুকে জিজ্ঞাসা করছি।” বললাম, “মহারাজ, মন খারাপ হওয়ায় আর বেলা দুপুর হয়ে গিয়েছিল বলে খবর দেইনি। নরেন্দ্রপুরে ভর্তিও করা যায় নি।” তিনি বললেন, “আমি উদ্-বিগ্ন হয়ে বারবার মন্টুকে জিজ্ঞেস করছি, কই তুমি তো এটা চিন্তা করলে না? তোমারটা চিন্তা করলে আর আমার কথা একবারও চিন্তা করলে না?” শুনে আমি চখের জল সামলাতে পারলাম না। এই স্নেহে কোনও খাদ নেই। পরে মহারাজ বললেন, “আমার ইচ্ছে ছিল না রহড়ায় পাঠাতে, ওখানে প্রায়ই গোলমাল লেগে থাকে।” রহড়ায় সেক্রেটারি মহারাজের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করে দিতে মন্টুবাবুকে বললেন। কিন্তু বিধির লিখন আলাদা, লাইন পাওয়া গেল না। মহারাজ আমায় বললেন, “তুমি রহড়া গিয়ে মহারাজকে বলবে, যেখান থেকেই হোক আমার সঙ্গে যেন ফোনে কথা বলেন”। আমার বাড়ি আস্তে রাত আটটা বেজে গেল। এক্তু পরেই বেলুর মঠ থেকে ফোন এলো-মহারাজ বললেন ,রহড়া যেতে হবেনা। আগামী কাল তুমি ছেলেতাকে নিয়ে বিদ্যামন্দিরে এসে প্রিন্সিপাল মহারাজের সাথে দেখা করলে ভর্তি নিয়ে নেবে,আমার সব বলা আছে”। পরদিন বিদ্যামান্দিরে প্রিন্সিপাল মহারাজ আমার সব কাগজপত্র দিয়ে পরের শুক্রবার সকালে এসে ভর্তি করতে বলেন। খবরটি ভরত মহারাজকে জানাতে গেলে তিনি আক্ষেপের সাথে বললেন, “যাঃ আজও হলনা? শুক্রবার ভর্তি করে আমাকে অবশ্যই জানিয়ে যাবে”। শুক্রবার ভর্তি করার পর মহারাজকে জানালে তিনি বললেন, “যাক বাঁচা গেল”। কৃতজ্ঞতার চখে জল এসে পড়ল। ভাবলাম এই নির্মল ভালোবাসা ও অকৃএিম স্নেহের কোনও পরিমাপ হয় কি? গরমের দিনে ভরত মহারাজ আমগাছতলায় দুপাশে দুটি বেঞ্চ রেখে মাঝখানে চেয়ার পেতে বসে থাকতেন। ভক্তেরা এলে ওই বেঞ্চে বসাতেন। কেউ না থাকলে আমি জানতে চাইলাম তিনি মঠবাসের প্রথম পর্বে কীভাবে জীবন কাটিয়েছেন, তখন মঠের অবস্থা কেমন ছিল,কার সান্নিধ্য পেয়েছেন-এইসব কথা। কিছুই বলতে চাইতেন না। বিশেষত পূর্বাশ্রমের কোনও কথাই বলতেন না। আমিও ছারবার পাত্র ছিলাম না। বছরের পর বছর বারবার জিজ্ঞেস করায় একদিন বললেন, “প্রথমে কিছুদিন বেলুড় মঠে থাকার পর মায়াবতী আশ্রমে কয়েক বছর ছিলাম। তারপর ভুবেনেশ্বর মঠে রাজা মহারাজের সেবক হয়ে আসি। বেশ কয়েক বছর ভুবেনেশ্বরে আছি, কিন্তু একবারও পুরীতে রথ দেখিনি। মহারাজকে বলাতে একবার রথ দেখতে অনুমতি দিলেন। রথের বারো দিন বাকি, বেলুড় মঠ থেকে একটি চিঠি গেল। পড়েই মহারাজের চোখ মুখ বিষণ্ণ। ডেকে বললেন, ‘ভরত, তোমাকে বেলুড় মঠে চলে যেতে হবে’। বললাম, ‘আমাদের আপনি পুরীতে রথ দেখতে অনুমতি দিয়েছিলেন, আরও কয়েকদিন বাকি আছে, ওই কটা দিন থেকে গেলে হত না’? মহারাজ বললেন, ‘ওরে, মায়ের কাছে শরৎ মহারাজ থাকেন, উনি পরিব্রাজনে যাবেন, মায়ের সেবা করবার কেউ থাকবে না। তোমাদের রথ দেখা সারাজীবন পড়ে আছে, যাও এখনি স্টেশনে গিয়ে টিকিট কেটে আনো, আগামী কালই যেতে হবে। রাঁধুনিকে ডাকো, বলে দেব রান্না করে রাখতে, যাতে খেয়ে যেতে পার’। আরও বললেন, বেলুড় মঠে গিয়ে দুদিনের বেশি যাতে না থাকি, বাগবাজারে মায়ের কাছে চলে যাই যাতে তাঁর সেবার কোনও ত্রুতি না হয়। মায়ের সেবার করার কোনও লোক থাকবেনা, ওই চিন্তাই মহারাজকে অস্থির করে তুলেছিল। আহা! মায়ের প্রতি কী অপরিসীম শ্রদ্ধাভক্তি, মমত্ববোধ! এরপর আমার আর কোনওদিন পুরীর রথ দেখা হয়নি”। কনখলে মন্দির ো ঠাকুরের মূর্তিপ্রতিষ্ঠা হবে। বেলুর মঠ ও অনন্যা স্থান থেকে সাধুরা যেতে শুরু করেছেন, ভক্তেরা চিঠিতে অনুমতি নিয়ে কনখল যাচ্ছেন। প্রেসিডেন্ট মহারাজ ও ভরত মহারাজের যাবার দিন স্থির হয়েছে। আমি মঠে গিয়ে ভরত মহারাজকে প্রণাম করে বসামাত্র জিজ্ঞাসা করলেন, “কী হল, তুমি কনখল যাবে না?” বললাম, “মহারাজ, সপ্তাহে তিন চারদিন আপনারই কাছে আসি। আপনি যেতে বলেননি, তাই যাবার কোনও বেবস্থা করিনি”। “সে কি! তোমার যাবার ইচ্ছা অথচ একবারও আমাকে জানালে না”? “আপনি আদেশ করলেই চলে যেতে পারি”। “এত দেরি হয়ে গেছে, কোথায় টিকিট পাবে”? “আপনি অনুমতি দিলে আমি কনখলে গিয়ে আপনার সঙ্গে দেখা করব। আপনি আমাদের থাকার ব্যবস্থা করে দেবেন”। “প্রেসিডেন্ট মহারাজকে নিয়ে আগামী পরশু দমদম থেকে প্লেনে দিল্লি হয়ে কনখলে পৌঁছাব। তুমি ওখানে এসে দেখা করো, সব ব্যবস্থা হয়ে যাবে”। আমি মঠ থেকে সজা হাওড়া চলে গেলাম। দেরাদুন এক্সপ্রেসের টিকিট না পেয়ে রাজধানী এক্সপ্রেসের দুটো টিকিট কেটে পরদিন দিল্লি যাত্রা করলাম। দিল্লি থেকে গাড়িতে বিকালে হরিদ্বার পৌঁছে কনখলে মহারাজের সঙ্গে দেখা করাতে খুব আনন্দ করে বললেন, “যাক, তুমি এসে গেছ, ভালো হয়েছে”। সেক্রেটারি মহারাজকে ডেকে ঘরের ব্যবস্থা করে দিলেন। তিনদিন উৎসব চলল। চতুর্থ দিন ভরত মহারাজ বললেন, “আমরা পঞ্চমীর দিন রওনা হব, দিল্লি হয়ে বৃন্দাবন যাব”। আমি বললাম, “মহারাজ, হাওড়া ফেরবার টিকিট হরিদ্বার, দেরাদুন স্টেশনে গিয়ে পাইনি, আপনি ব্যবস্থা করে না দিলে খুব অসবিধায় পড়ব”। মহারাজ মন্টুবাবুকে বললেন, “টেলিফোন করে এস কে বিশ্বাসকে বলো, আমার সাথে আজই যেন দেখা করেন”। ভদ্রলোক সন্ধ্যায় এসে মহারাজের সাথে দেখা করলে মহারাজ তাঁকে বললেন, “আগামী কাল সকালে আমরা চলে যাচ্ছি, কিন্তু দুখানা হাওড়ার টিকিট আপনাকে দিতে হবে”। তিনি রাজি হলেন। পরদিন সকালে প্রেসিডেন্ট মহারাজ এবং ভরত মহারাজ চলে গেলেন। সকাল কেটে যাচ্ছে দেখে আশ্রমের ম্যানেজার কান্ত মহারাজকে জিজ্ঞাস করলাম মিঃ বিশ্বাস বলে কেউ হাওড়া যাবার টিকিট পাঠিয়েছেন কি না। তিনি বললেন, “আমার কেউ কোনও টিকিট দেয়নি”। সেক্রেটারি মহারাজকে দেখতে না পেয়ে অবশেষে একবার দেরাদুন, একবার হৃষীকেশ, একবার হরিদ্বারে লাইন দিয়ে টিকিট না পেয়ে ফিরে এসে আবার খবর নিয়ে জানলাম কেউ কোনও টিকিট দিয়ে যায়নি। সেদিনের ট্রেনে যে মহারাজদের হাওড়া ফেরার কথা, একে একে তাঁরা সকলেই স্টেশন চলে গেলেন। সেই সময় সেক্রেটারি মহারাজকে দেখতে পেয়ে জিজ্ঞাসা করলাম এস কে এস কে বিশ্বাস দুখানা টিকিট পাঠিয়েছে কি না। তিনি পকেট থেকে দুখানা টিকিট বার করে বললেন, “খুব ভুল হয়ে গেছে, এখনও সময় আছে, এখুনি স্টেশনে চলে যান”। তাড়াতাড়ি ঘরে এসে ব্যাগ গুছিয়ে স্টেশন পৌঁছালাম গাড়ি ছাড়বার প্রায় চল্লিশ মিনিট আগে। ট্রেনের কামরায় সিট নম্বর মিলিয়ে বসতেই দেখি পুরো কামরাটিতে মঠের প্রবীণ সাধুরাই বসে আছেন। আনন্দে মন ভরে গেল। সমস্ত পথ সাধুসঙ্গ করতে করতে হাওড়া ফিরলা। ওই যাত্রায় আপ্তকামানন্দজী মহারাজের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা হয়েছিল। তখন কাঁথি মঠের অধ্যক্ষ। পরদিন তিনি আমায় ‘উদ্বোধনে’ যেতে বলেন এবং সেখানে গেলে অধ্যক্ষ পূজনীয় নিরাময়নন্দজীর সঙ্গে আলাপ করিয়ে দেন। পরে বেলুড় মঠে গেলে ভরত মহারাজ জিজ্ঞাসা করেন ফিরতে কোনও অসুবিধা হয়েছিল কি না। বলি, “আপনি বলে দেওয়ার টিকিট পেয়ে মহারাজদের সঙ্গে একিই কামরায় একসঙ্গে আসতে পেরে খুব আনন্দ পেয়েছি, যা শুধু আপনার কৃপাতেই সম্ভব হয়েছে।” ১৯৭০ সালে Expo 70 International Exhibi-tion হয়েছিল জাপানের ওসাকায়। আমি ওইসময় জাপানে পনেরো দিন ছিলাম। ফিরে এসে সব ঘটনা আদ্যোপান্ত মহারাজকে বলতাম, তিনিও উৎসুক হয়ে শুনতেন। ১৯৮২ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত ব্যবসার প্রসারের জন্য বছরে দুবার করে বিদেশে যেতাম। যাবার আগে আমার Itinerary দেখে বলতেন, “এভাবে দেশ-দেশান্তরে ঝটিকা সফর কী করে কর?” “শরীর ঠিক রেখে সবার সঙ্গে কথা বলে তাদের কাছ থেকে অর্ডার আনতে তোমাদের নিশ্চয় আনন্দ হয়।” আশীর্বাদ করতেন, বলতেন-তোমাদের অদম্য উৎসাহ আর ব্যবসাকে ভালোবাসাই উন্নতির লক্ষণ। ১৯৭৭ সালে একটি বড়ো দুর্ঘটনায় আমার মাথায় সাতটি ও পায়ে অনেকগুলি সেলাই করতে হয়। একটি লরি ম্যাটাডোর ভ্যানের ডালার সঙ্গে আমাকে পিষে দিয়েছিল। আমার ড্রাইভার হাসপাতালে নিয়ে যায় কিন্তু আমি বন্ডে সই করে বাড়ি চলে আসি। এই খবর শুনে ভরত মহারাজ ফোন করে বলেন, “ভালো ডাক্তার দেখাও।” প্রচুর রক্তপাত হয়েছে শুনে মুরগির স্টূ খেতে বলেছিলেন, কিন্তু আমি জানাই যে আমাদের বাড়িতে মুরগির মাংস ঢোকে না। তাতে বললেন, “এসেন্স অফ চিকেন অ্যাম্পুলে পাওয়া যায়, আনিয়ে খাও।” পরে তিনি দু-তিন বার ফোনে খবর নেন। ১৯৮৯-এর সেপ্টেম্বরে ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক হওয়ায় আমি সেবা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হই। সেখানে একমাস কুড়িদিন ছিলাম। সেসময় আমার পাশের কেবিনে ভরত মহারাজ অশুস্থ হয়ে ভর্তি হন। আমি ডাক্তারের পরামর্শ মতো সামনের বারান্দায় হাঁটতাম আর মহারাজের কেবিনে গিয়ে তাঁর খোঁজ নিতাম। প্রায়ই পূজনীয় গহনানন্দজী মহারাজ, পূজনীয় আত্মস্থানন্দজী মহারাজ, পূজনীয় প্রভানন্দজী মহারাজ প্রমুখ তাঁকে দেখতে আসতেন; যাবার সময় আমার কেবিনে ঢুকেও খবর নিয়ে যেতেন। পনেরো দিন পর মহারাজ সুস্থ হয়ে মঠে ফিরে যান। আমাকে আরও পাঁচ দিন পর হাসপাতাল থেকে ছাড়া হয়। বাড়িতে ফিরে আসার পড়ও ভরত মহারাজ দুদিন টেলিফোন করে আমার খবর নিয়েছিলেন। মহারাজ যতদিন স্থুলদেহে ছিলেন ততদিন এবং শেষকালে তিনি সেবাপ্রতিষ্ঠানে থাকাকালীন তাঁর কাছে যাতায়াত করতাম। সেবাপ্রতিষ্ঠানেই ১৯৮৯-এর ১৭ নভেম্বর তাঁর দেহাবসান হয়। তাঁর আন্তরিক ভালোবাসা, অপত্যস্নেহ ও মধুর ব্যবহার; তাঁর সৎসঙ্গের অন্তরস্পর্শী ঘটনাবলি জীবনের শেষদিন পর্যন্ত আমার হৃদয়ে জাগরূক থাকবে।